পাতা:ব্যঙ্গকৌতুক - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৭২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


\9ხ- ব্যঙ্গকৌতুক ঘেটু। ঘেটে। কী ! আমি তোমার বাগানের মালী ? বাপের জন্মে এমন অভদর মানুষ তে দেখিনি গা ! ঘেটে ! আমি যদি তোমাকে ইন্দির না ব’লে ইন্দিলে বলি ! মনসা । তা হ’লেই চিত্তিরে হয় ! ( দেবীগণের উচ্চহাস্ত ) ইন্দ্র । ( হাস্তে যোগদান করিবার চেষ্টা করিয়া ) কুন্দাভদন্তি, বহু তপস্যার দ্বারা স্বৰ্গলোক লাভ করিয়াছিলাম, কিন্তু কোন মুকুতি ফলে আপনকার সকলের স্মিতদশনময়ুখে স্বৰ্গলোক অকস্মাং অতিমাত্র আলোকিত হইয়া উঠিল এখনো তাহ ধারণা করিতে পারিলাম না ! ঘেটু। আরে রাখো, ওসব বাজে কথা রাখে। তোমার পেয়াদাগুলো আমাকে সোনার ভাড়ে ক’রে কী সব এনে দেয় সে আমি ছুতে পারিনে । তোমার শচী গিন্নিকে ব’লে দিয়ে আমার জন্যে রোজ এক থাল গোবরের লাড় তৈরি করে পঠিয়ে দেন । ইন্দ্র । তথাস্তু। স্বর্গে আমাদের কল্পধেনু আছেন। তিনি সকলের সকল কামনাই পূরণ করিয়া থাকেন। বোধ করি আপনার প্রার্থন পূর্ণ করা তাহার পক্ষে দুঃসাধ্য না হইতে পারে ! শীতলা । ( চন্দ্রকে এক কোণে গুপ্তপ্রায় দেখিয়া নিকটে গিয় ) মাইরি ! তুমি এতে ছলও জানো ভাই ! আমাকে আচ্ছা ভোগ ভুগিয়েচে যাহোক্‌ ! আমি বলি, তুমি বুঝি অন্দর মহলে আছ । ঢুকে দেখি, অশ্লেষ আর মঘা নবাবপুত্রীর মতো ব’সে আছেন—আমাকে দেখে অবাক হ’য়ে রইলেন । আমার সহ হ’লে না। আমি ব’ল্লম, বলি, ও বড়োমানুষের ঝি, তোমাদের গতর খাটিয়ে খেতে হয় না ব’লে বুঝি দেমাকে মাটিতে প পড়ে না! যা বলতে হয় তা বলেচি ! ধুন্ধমার বাধিয়ে দিয়ে এসেচি। চন্দ্র। ( জনান্তিকে ইন্দ্রের প্রতি ) সপ্তবিংশতির উপর অষ্টবিংশতিতম যোগ হইলে কিরূপ দুৰ্য্যোগ উপস্থিত হইতে পারে তাহ, হে শচীপতে, সহজেই অনুভব করিতে পারিবেন । ( শীতলার প্রতি ) অয়ি অনবদ্যে,—