পাতা:ব্যবসায়ে বাঙালী.djvu/১০৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


, ব্যবসায়ে বাঙালী * প্রদর্শন করিতে যাওয়া যে কত বড় ভুল, বাঙালী তাহা কোন দিন বোঝে নাই, বুঝিবে কিনা সন্দেহ। মুসলমান জাতির ভিতর এখনও কিছু কিছু একতা দেখা যায়, কারণ র্তাহারা সকলেই এখনও পণ্ডিত হইয়া উঠিতে পারেন নাই। আর কিছুদিন পরে অবগু তাহারাও ম্বে হিন্দুর অবস্থা প্রাপ্ত হইবেন, তাহাতে সন্দেহ নাই । অনুকরণের লেশ। বাঙালীর ব্যক্তিত্ব বলিয়া কোন কিছু নাই। অন্যে যাহা করিতেছে, র্তাহারা সেই আদর্শই অমুসরণ করেন। কিন্তু অন্যের ঐ আদর্শ ভাল কি মন্দ সে বিচার কেহ করেন না । একজন সিগারেটু খাইতেছে অতএব আর একজন তাহ খাইবে না কেন, ইহাই যাহাদের যুক্তি, সে জাতির দ্বারা আর কি আশা করা যাইতে পারে ? একজন ধনী উাহার পুত্র-কন্যার বিবাহে পোলাও, কালিয়া খাওয়াইয়াছে বলিয়া গরীবের ভিটামাটি বন্ধক দিয়াও সেই আদর্শ অনুসরণ করিতে না পারিলে, যে জাতির আত্ম-সম্মান নষ্ট হয়, সে জাতির উদ্ধারের উপায় কি ? আমার দেশবাসী জনৈক দরিদ্র গৃহস্থ আত্মীয় বন্ধুবান্ধব ও ও গ্রামবাসীর অর্থ-সাহায্যে র্তাহার কন্যার বিবাহে বরযাত্র ও নিমন্ত্রিতবর্গকে পোলাও খাওয়াইয়াছিলেন । এজন্য র্তাহাকে প্রশ্ন করায়, তিনি বলিলেন যে, সাহায্যকারীরা কেহ চাল, কেহ ধি, কেহ মাছ দিয়াছেন, কাজেই বাধ্য হইয়াই ঐ ব্যবস্থা করিতে হইয়াছে। ব্যাপার যদি তাহাই হয়, তাহা হইলে আমার মতে ভদ্রলোকের চাউল খি বিক্রয় করিয়া কিছু টাকা হাত করা উচিত ছিল। বস্তুত: সামাজিক প্রথা ও ভূয়া মান-মৰ্য্যাদার খাতিরে, আমি জানি, বিশিষ্ট বিশিষ্ট বাঙ্গালী পরিবারও অনেক সময়ে ঋণগ্রস্ত হইয়া থাকে। " এখানেও আমি বলিব, বাঙালীর স্বাধীন চিন্তা ও ব্যক্তিত্বেরই অভাব ।