পাতা:ব্যবসায়ে বাঙালী.djvu/১৫০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ব্যবসায়ে বাঙালী Şow কোন কাজ করা সম্ভব হয় না। আর বি,এ, এম,এ পাশই যে শিক্ষার মাপকাঠী ইহা মনে করা ভুল। বরং ম্যাটিক পৰ্য্যন্ত পড়িয়া অর্থ-নীতি, বাণিজ্য-নীতি, কৃষিতত্ত্ব, শিল্প প্রভৃতি বিষয়ক পুস্তক পাঠ করিলে অনেক ছাত্রের যে অভিজ্ঞতা-লাভ হইবে, তারা হয়তো কৰ্ম্মক্ষেত্রে তাহাদের একটা পন্থা আবিষ্কৃত হইতে পারে। আমার ক্ষুদ্র অভিজ্ঞতা হইতে মনে হয়, এই জাতীয় শিক্ষাই সাধারণ ছাত্রদের পক্ষে বিশেষ উপযোগী ও কাৰ্য্যকরী । কারণ এ বিষয়ে সকলেই একমত হইবেন যে, বাংলা দেশের ছাত্রগণের পাঠ্য পুস্তকের বাহিরে সাধারণ-জ্ঞান অতি কম । বাংলার প্রত্যেক পল্লীগ্রামের অন্ততঃ কতকগুলি ছাত্রকেও যদি এই আদর্শে তৈরী করা যায়, এবং তাহার মধ্যে কয়েকটি যুবকও যদি জীবন-যুদ্ধে সফলতা লাভ করিতে পারে, তবে ক্রমশঃ ইহা সকলকেই উৎসাহিত করিবে । ज्ञब्पांज़न्चद्ध खलीन्वब्पन्घांडा এই প্রসঙ্গে আমি আর একটা কথা তুলিতে চাই। পল্লী-অঞ্চলের সাধারণ গৃহস্থের ছেলেদের হোষ্টেলে থাকিয়া কলেজে পড়িতে হয়। ইহার একটা পরোক্ষ কুফল আছে। সহরের চাকচিক্যময়ী সভ্যতা ও আড়ম্বরপূর্ণ জীবন-যাত্রা মনের উপরে তাহদের এমনি ভেলকি লাগাইয় দেয় যে, পল্লী-অঞ্চলের ছেলেমেয়েদের মাথা বিগড়াইয়া যায়। ক্রমশঃ তাহারা অমিতব্যয়ী ও সহরবাসীর আড়ম্বরপূর্ণ জীবন-যাপনে অভ্যস্ত হইয় পড়ে। তখন তাহাদের পক্ষে পল্লী-জীবন-যাপন অসঙ্ক इहेब्रा खेरठं । т ঘূদিও বর্তমানে চা-পান পল্লী-অঞ্চলেও সংক্রামক হইয়া উঠিতেছে, তথাপি এখনও অনেক বাড়ীতে উহার ছোয়াচ লাগিতে বাকী আছে । কিন্তু এই সব পরিবারের ছেলেরাও কলিকাতার হোষ্টেলে আসিয়া