পাতা:ব্যবসায়ে বাঙালী.djvu/২৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


}} ব্যবসায়ে বাঙালী রহিল। আর সত্য সত্যও তখনকার দিনে উচ্চবর্ণের কোন লোক ব্যবসা করিলে সমাজ তাহাকে অবহেলার চক্ষে দেখিত। তাহার সহিত বৈবাহিক সম্বন্ধ স্থাপন করিতেও অনেকে লজাবোধ করিতেন । ক্রমশ: লোকসংখ্যা বৃদ্ধির ফলে এবং দেশে আধুনিক সভ্যতা ও ইংরাজী শিক্ষার বিস্তার হওয়ার দরুণ সাধারণ লোকের মধ্যে নিত্যনূতন অভাব-অভিযোগ দেখা দিতে লাগিল এবং ক্রমে চাকুরী দুষ্প্রাপ্য হইয়া উঠিল। কাজেই উদরাল্প-সংস্থানের উপায়ান্তর না দেখিয়া লোকে ব্যবসার দিকে অনুরাগী হইয়া পড়িল। কিন্তু ব্যবসার দ্বার তখন রুদ্ধ । ব্যবসাক্সে প্রভিজ্জ্যোগিতা বাংলার বাহির হইতে অগণিত অ-বাঙালীর দল আসিয়া ংলার ব্যবসা-বাণিজ্য সমস্তই দখল করিয়া বসিয়াছে । আর ব্যাপার এখন এমন দাড়াইয়াছে ষে, এখন কোন বাঙালী যদি ব্যবসাক্ষেত্রে তাহাদেব সহিত প্রতিযোগিতায় প্রবৃত্ত হয়, তবে তাহারা এরূপভাবে সঙ্ঘবদ্ধ হইবে যে, বাঙালী কিছুতেই টিকিয়া থাকিতে পরিবে না । ইহারা দশজন ব্যবসায়ী যদি জোট হুইয়া একজনের সঙ্গে প্রতিযোগিতা আরম্ভ করিয়া দেয়, তবে সে ব্যবসায়ী এই সমবেত প্রতিযোগিতার মুখে কতক্ষণ টিকিতে পারে? প্রথমতঃ ইহার এদেশীয় নূতন ব্যবসায়ীকে কোথায়ও স্ববিধা দরে মাল কিনিতে দিবে না। টাকার জোরে যদি বা কেহ নগদ টাকায় মাল খরিদ করিতে সক্ষমও হয়, তখন ঐ সমস্ত অ-বাঙালী ব্যবসায়ীরা হয়তো সজ্ঞাবদ্ধভাবে বলিয়া বসিবে—উক্ত নূতন ব্যবসায়ীর নিকট যেলোক মাল বিক্রয় করিবে, তাহার নিকট হইতে আমরা কেহই মাল খরিদ করিব না। একটি খরিদ্ধারের ভরসা করিয়া দশজন মহাজনের বিরুদ্ধে দাড়াইতে কে সাহস করিবে ? কাহার এত বড় বুকের পাট ?