পাতা:ব্যবসায়ে বাঙালী.djvu/৬৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ব্যাঙ্ক ও আড়তদারী কোম্পানীর মধ্যে পার্থক্য ব্যবসায়-বাণিজ্যের দিক্ হইতে বিচার করিলে ব্যাঙ্ক ও আড়তদারী কোম্পানীর কাৰ্য্যের ( functions ) মধ্যে বাহতঃ একটা সামঞ্জস্ত লক্ষিত হয় বটে, তাহা হইলেও আড়তদারী কোং অপেক্ষা ব্যাঙ্কের দায়িত্ব অনেক বেশী। কারণ Current account বা চলতি হিসাবে যাহারা টাকা আমানত রাখিয়াছে, তাহাদের টাকা সৰ্ব্বদাই ব্যাঙ্কে মজুত রাখিতে হয়। আমানতকারিগণ যে-মুহূৰ্ত্তে চেক্ দাখিল করিবে, তৎক্ষণাৎ টাকা প্রদান করিতে হইবে। ইহাতে একঘণ্টা সময়ও অপেক্ষা করা চলিবে না। তাছাড়া, ব্যাঙ্কে ৩ মাস, ৬ মাস ও এক বৎসরের মেয়াদে যে-সমস্ত টাকা রাখা হয়, তাহাও নিৰ্দ্ধারিত দিনে শোধ করিতে হয় ; এমন কি, এই মেয়াদী জমার টাকা, যদি জামানতকারী নিৰ্দ্ধারিত সময়ের পূৰ্ব্বে, ব্যাঙ্কে পাশ-বই জামিন রাখিয়া ধার লইতে চায়, তাহাও দিতে হইবে। কাজেই ব্যাঙ্ক আমানতী-টাকা ঠিক স্থায়িভাবে স্বদে খাটাইতে পারে না। কিন্তু এইজন্ত ব্যাঙ্ক যে আমানতকারীদের সমস্ত টাকা ঘরে আগলাইয়া বসিয়া থাকিয়া স্বদ গুণিয়া যায়, তাহা মোটেই নয়। ব্যাঙ্কে সৰ্ব্বদাই কেহ টাকা জমা দিতেছে, কেহ টাকা উঠাইয়া লইতেছে। এ প্রকার লেনদেন দৈনিক চলে। কাজেই ব্যাঙ্কের কোন সময়ে কোন অভাবে পড়িতে হয় না । ইহা ছাড়া ‘গবর্ণমেন্ট-পেপারে প্রত্যেক ব্যাঙ্কের একটা রিজার্ড ফও থাকে, হঠাৎ কোন কারণে অভাবে পড়িয়া গেলে, উক্ত