পাতা:ভারতবর্ষের ভূগোল বৃত্তান্ত.pdf/২৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
১৪

ভারতবর্ষের ভূগোল বৃত্তান্ত

পল্লীর অগ্রভাগে কাবেরী নদী দুই শাখায় বিভক্ত হইয়াছে, তাহার উত্তরের শাখা কোলেরুণ নাম ধারণ পূর্বক সমুদ্রে প্রবেশ করিয়াছে।

১২শ। পেনার, মহীশুর প্রদেশে উদ্ভব হইয়া নেল্লুরের নিম্নভাগে বঙ্গোপসাগরে মিলিত হইয়াছে।

১৩ শ। পালার, কর্ণাট দেশে উৎপন্ন হইয়া মান্দ্রাজের দক্ষিণে সমুদ্র-সঙ্গম করিয়াছে।

১৪ শ। পুণাইর, মহীশুর দেশে জন্ম গ্রহণ করিয়া কদলুরের সন্নিকট সমুদ্রে মিলিয়াছে।

১৫ শ। ভিলার, আতুর দেশ দিয়া গমন করিয়া পোর্টনভোর নিকটে সমুদ্রে প্রবেশ করিয়াছে ।

১৬ শ। কৃষ্ণা, মহাবলেশ্বরের অধিত্যকায় পশ্চিম ঘাট পৰ্ব্বত হইতে উৎপন্ন হইয়া, ৬৫০ মাইল পরিভ্রমণ পূর্ব্বক বঙ্গ উপসাগরে পতিত হইয়াছে। —ইহার প্রধান উপনদী তুঙ্গভদ্রা, যাহা তুঙ্গ, ভদ্রা, বরদা, হগ্রা এবং বেদবতী, এই কয়েকটি নদীর মিলনে উৎপন্ন, বরুণা, গঙ্গা, ঘাটপৰ্ব্ব, মুলপৰ্ব্ব, এবং বিজয়পুর হইতে আসিয়া মিলিত ধোন নামা লোণা নদী, ভীমা, দিন্দী, পেদাওয়াগ বা পদবাগ এবং মসী।

১৭ শ। গোদাবরী, পশ্চিম ঘাট পৰ্ব্বতে ত্ৰ্যম্বকের মূল সন্নিধানে উদ্ভব হইয়া, ৮৫০ মাইল ভ্রমণ করিয়া বঙ্গোপসাগরে মিলিত হইয়াছে। —ইহার প্রধান উপনদী পারা, সিন্ধানা, মানহাট, মঞ্জীরা, দুদনা, ঘর্কপুর্ণা প্ৰাণহিতা এবং মোলাইর।