পাতা:মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত.djvu/১০৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১০৪ মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত। করিলেন কেন ? বাস্তবিক তিনি সমাজকে বিশেষরূপে হিন্দু আকার দিয়াছিলেন। ব্রাহ্মণ বেদীতে বসিয়া বেদ পাঠ করিতে. ছেন,বৈদিক শ্লোকের ব্যাখ্যা হইতেছে, এসকল সম্পূৰ্ণহিন্দুভাব। ট্রষ্টউড পত্রের অসাম্প্রদায়িক উদারভাব, এবং ঐৰূপ হিন্দু ভাবের মধ্যে সঙ্গতি আছে কি না, ইহাই বিবেচনার বিষয়। কেহ কেহ উহার জন্ত রামমোহন রায়কে অসঙ্গতি দোষে দোষী করিয়াছেন । আমরা সেরূপ কোন দোষ দেখি না। সত্যমাত্রই অসাম্প্রদায়িক ও উদার। সত্য ভারতবর্ষীয় কি ইয়োরোপীয়, হিন্দু কি যাবনিক, জাতীয় কি বিজাতীয় নাই। সত্য 'আমারও নহে, তোমারও নহে। উহা মানবজাতির সাধারণ সম্পত্তি। কিন্তু সত্যকে কার্য্যে পরিণত করা ও সত্যপ্রচার সম্বন্ধে প্রত্যেক জাতি তাহাদিগের জাতীয় ভাব ও রুচি অনুসারে বিভিন্ন প্রণালী অবলম্বন করিয়া থাকেন। কোন ধৰ্ম্মসম্প্রদায় দাড়াইয়া প্রার্থনা করেন, কোন ধৰ্ম্মসম্প্রদায় বসিয়া প্রার্থনা করেন, এবং কোন ধৰ্ম্মসম্প্রদায় একবার দাড়াইয়া ও একবার বসিয়া প্রার্থনা করেন। সাৰ্ব্বভৌমিকতা রক্ষা করিতে হইবে বলিয়া কি এই তিন প্রকারেই প্রার্থনা করিতে হইবে ? ইহার তুল্য অসম্ভব ও হাস্যের কথা আর কি আছে? জাতীয় ভাব অবলম্বন করাতে কেবল দোষ নাই এরূপ নহে, ঐরূ? করাই কৰ্ত্তব্য। নতুবা প্রচার বিষয়ে কৃতকাৰ্য্য হওয়া মুকঠিন। সমগ্র জগতের ইতিহাস এ কথার যাথার্থ্যপক্ষে সাক্ষ্যদান করিতেছে। ভক্তিভাজন সেন্টপল পৰ্য্যন্ত উপদেশ দিয়াছেন যে