পাতা:মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত.djvu/১২৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১১৮ মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত। সতীদাহ নিবারণে রাজপুরুষদিগের নিশ্চেষ্টত। সতীদাহের বিরুদ্ধে ইয়োরোপীয় কি দেশীয় অনেকেই কিছু বলিতেন না। এমন কি, খৃষ্টধৰ্ম্মপ্রচারক অনেক পাদ্রি সালে উহার বিরুদ্ধে বাত্মিপত্তি করিতেন না। র্তাহারা মনে করিতেন যে, গবর্ণমেণ্ট যখন সতীদাহ নিবারণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করিতে ছেন না, তখন উক্ত প্রথার বিরুদ্ধে কথা বলিলে গবৰ্ণমেণ্টেং বিরুদ্ধে কথা বলা হইবে। বাস্তবিক এরূপ আশঙ্কার একীি কারণ ঘটিয়াছিল। ডাক্তার জন্‌ নামক একজন সাহেব এইরূপ কোন কারণে এ দেশ হইতে তাড়িত হইয়াছিলেন। সুতরা তাহারা ভাবিতেন যে, সতীদাহের প্রতিবাদ করিলে তাহারাং ঐ রূপে তাড়িত হইবেন। গবর্ণমেণ্টের উচ্চ পদাধিষ্ঠিত, সুশি ক্ষিত, ও ধাৰ্ম্মিক কৰ্ম্মচারীদিগের মধ্যে প্রায় সকলেই উত্ত কুপ্রথা নিবারণে হস্তক্ষেপ করা অন্যায় মনে করিতেন। তাহার বলিতেন যে, ধৰ্ম্মসম্বন্ধে দেশীয়দিগের সম্পূর্ণ স্বাধীনতা রক্ষ করিতে গবৰ্ণমেণ্ট বাধা ; এবং এরূপ আশা করিতেন যে, সুশিক্ষ ও জ্ঞানের উন্নতি সহকারে উহ। ক্রমশঃ রহিত হইয়া যাইবে। পাঠকবর্গের স্মরণ আছে যে, রামমোহন রায় যৌবন কালে একজন আত্মীয় স্ত্রীলোকের সহমরণ ব্যাপারে ভয়ঙ্কর নিষ্ঠুরত দেখিয়া প্রতিজ্ঞা করিয়াছিলেন যে, যতদিন পর্য্যন্ত ন উক্ত প্রথ রহিত হয়, ততদিন তিনি তজ্জন্ত প্রাণপণে চেষ্টা করিবেন তিনি সেই প্রতিজ্ঞ কখনও বিস্তৃত হন নাই। উপদেশ, পুস্তক প্রচার, গবর্ণমেণ্টকে পরামর্শদান, ইত্যাদি বিবিধ উপায়ে তিীি