পাতা:মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত.djvu/১৩৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সামাজিক ও রাজনৈতিক আন্দোলন। ১২৯ পরিতাপের কথা ? ধৰ্ম্মসভা কেন ? সমুদয় বঙ্গভূমি,—ভারতবর্ষে হুল স্থল পড়িয়া গেল । ঘোর কলি উপস্থিত । রামমোহন রায়ের প্রতি চতুর্দিক হইতে গালিবর্ষণ হইতে লাগিল। তাহাকে সম্পূর্ণরূপে সমাজচ্যুত করা হইল। এই সময়ে কলিকাতার কোন কোন বড় মানুষ বলিতে লাগিলেন যে, তাহাকে মারিয়া ফেলিবেন । বাস্তবিক রামমোহন রায় ও তাহার বন্ধুগণের পক্ষে অতি সংকট কাল উপস্থিত হইয়াছিল। তাহার হিতৈষী ব্যক্তিগণ তাহাকে সৰ্ব্বদা সাবধান হইয়া থাক্লিতে, বাহিরে যাইবার সময়ে সঙ্গে প্রহরী লইয়া যাইতে পরামর্শ দিতে লাগিলেন। কিন্তু তিনি অনেক সময়ে সম্পূর্ণ নির্ভয়ভাবে একাকী নগরের রাজপথে ভ্রমণ করিতেন । একেবারে সাবধান হন নাই, এরূপ নহে। বাহিরে যাইবার সময়ে বক্ষস্থলে পোযুtকের ভিতর কিরীচ রক্ষা করিতেন। লর্ড উইলিয়ম বেণ্টিঙ্ককে অভিনন্দন পত্র প্রদান। লর্ড উইলিয়ম্ বেণ্টিঙ্কের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ জন্য রামমোহন রায় সবান্ধবে তাহাকে অভিনন্দন পত্র প্রদান করিলেন । আমরা কোন ভক্তিভাজন প্রাচীন ব্যক্তির + নিকট শুনিয়াছি যে, উক্ত অভিনন্দন পত্রে বাবু দ্বারকানাথ ঠাকুর, বাবু কালীনাথ রায়, তেলিনীপাড়ার বাবু অন্নদাপ্রসাদ বন্দ্যোপাধ্যায় প্রভৃতি তিন চারি জন ব্যতীত দেশের কোন সন্ত্রান্ত লোক স্বাক্ষর করেন নাই। .ജ്ജ

  • শ্ৰীযুক্ত বাবু রামতনু লাহিড়ী।