পাতা:মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত.djvu/১৬৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সামাজিক ও রাজনৈতিক আন্দোলন। ১৬১ তেন, প্রত্যেক বারে এক একটা কপর্দক সম্মুখে রক্ষা করিতেন। কপর্দক রক্ষা করিবার তাৎপর্য্য এই যে, একটী নির্দিষ্ট সংখ্যক কপর্দক হইলেই আর তিনি কোন ক্রমেই সুরাম্পর্শ করিবেন না। কথিত আছে, এক দিবস তাহার কোন বন্ধু তাহাকে উন্মত্ত করিয়া আমোদ দেখিবার জন্ত কয়েকটা কপর্দক চুরি করিয়াছিলেন, সুতরাং ভ্রমক্রমে তাহার পানের পরিমাণ অধিক হইয়া গিয়াছিল। রামমোহন রায় ইহা অনুভব করিবামাত্র বুঝিতে পারিলেন যে, কেহ তাহার কপর্দক চুরি করিয়া থাকিবে। কে চুরি করিয়াছেন, জানিতে পারিয়া তাহার প্রতি অত্যন্ত ক্রুদ্ধ হইয়া উঠিলেন এবং “বরং পণ্ডিত শক্র ভাল, তথাচ মূৰ্থ বন্ধু ভাল নহে” এই মৰ্ম্মের সংস্কৃত শ্লোকটা উচ্চারণ করিয়৷ তাহাকে তিরস্কার করিলেন । অতিরিক্ত সুরাপানের প্রতি তাহার এতদূর বিদ্বেষ ছিল যে, তাহার কোন বন্ধু একবার উক্ত দোষে দোষী হইয়াছিলেন বলিয়। ছয় মাস কাল তাহীর মুখদর্শন করেন নাই । * ধৰ্ম্ম ও রাজনীতি । সচরাচর লোকে রাজা রামমোহন রারকে ব্রহ্মসমাজ-সংস্থt. পক ও সতীদাহ নিবারণের প্রধান উদ্যোগী বলিয়া জানেন । কিন্তু বাস্তব কথা এই, প্রার এমন কোন প্রয়োজনীয় বিষয় ছিল ন, যাহাতে তিনি হস্তক্ষেপ করেন নাই। তিনি কেবল ব্ৰহ্মজ্ঞান প্রচার প্রভৃতি কাৰ্য্যেই আপনার সমস্ত চেষ্ট বদ্ধ রাখেন নাই। রাজনৈতিক আন্দোলনেও তিনি যারপর নাই উৎসাহ সহকারে

  • ৭১-৭৪ পৃষ্ঠা দেখ।