পাতা:মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত.djvu/১৯৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ইংলগু-বাস । }ఏసి হয়, তখন তাহার বয়স অষ্টসপ্ততি বৎসর। রামমোহন রায়ের সহিত সাক্ষাতের পর তিনি অধিকদিন জীবিত ছিলেন না । সেই বৎসর ৩০শে জুন দিবসে তিনি পরলোক গমন করেন । লিভারপুলে তিনি অতি অল্পকালই অবস্থিতি করিয়াছিলেন ; পালেমেণ্ট মহাসভায় রিফরম্ বিল্ ও ভারতবর্ষ সম্বন্ধে তর্ক বিতর্ক শুনিবার জন্য তিনি শীঘ্রই লওন যাইতে বাধ্য হইলেন। যাইবার সময় রস্কে, লর্ড ব্রুহামকে (Brougham) একখানি পত্র দিলেন। উক্ত পত্রে তিনি রামমোহন রায়ের পূর্ব বৃত্তান্ত ও র্তাহার ইংলও আসিবার উন্ধেগু সংক্ষেপে ব্যক্ত করিয়া তাহাকে পালেমেণ্ট মহাসভায় গ্যালারির নীচে আসন দিবার জন্য অনুরোধ করিলেন। লিভারপুল হইতে লণ্ডন। লিভারপুল হইতে লণ্ডন যাইবার সময়ে রামমোহন রায় রেলওয়ের উভয় পাশ্বে ইংলণ্ডের ধন, সভ্যতা, ও ক্ষমতার নিদর্শন সকল প্রত্যক্ষ করিয়া আশ্চৰ্য্য হইতে লাগিলেন । মুন্দর হৰ্ম্মানিচয়, পুষ্পোদ্যান-সমন্বিত-কুটার-রাজী, চতুর্দিকুব্যাপী রেলরোড, অশেষহিতকরী কৃত্রিম নদী ও মনোহর সেতু সকল তাহার নয়ন মন আকর্ষণ করিতে লাগিল। যে দিকে তিনি দৃষ্টিপাত করেন, সৰ্ব্বত্র-পরিশ্রম, অধ্যবসায় ও বিজ্ঞানের জয়স্তম্ভ প্রতিষ্ঠিত দেখিতে পান। ইংলও কেন পৃথিবীর মধ্যে এক প্রধান দেশ এবং ভারতবর্ষ কেন দুঃখ ও দরিদ্রতায় মুহমান, ইহা তিনি মুম্পষ্ট অনুভব করিলেন।