পাতা:মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত.djvu/২১১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২০৬ মহাত্মা রাজ রামমোহন রায়ের জীবনচরিত। চিতুিত কৰ্ম্মচারীকে চব্বিশ বৎসরের নীচে ভারতবর্ষে প্রেরণ করা উচিত নয়, অনুন ২২ বৎসরের নীচে র্তাহাদিগকে কখনই সিভিলিয়ানরূপে ভারতবর্ষে প্রেরণ করা উচিত নহে। উক্ত বয়সে র্যাহারা ভারতবর্ষে প্রেরিত হইবেন, তাহাদিগের মধ্যে যিনি কোন এক জন ইংলণ্ডীয় ব্যবস্থা শাস্ত্রের অধ্যাপকের (Professor of English Law) foot, oss of tool of প্রদর্শন করিয়া প্রমাণ করিবেন যে, উক্ত আইন বিষয়ে তাহা জ্ঞান আছে, তিনিই বিচার বিভাগে কৰ্ম্ম পাইবেন। অন্ন সিভিলিয়নের পাইবেন না। যদিও তাহাকে ভারতবে ইংলওঁীয় ব্যবস্থা শাস্ত্র (English Law) অনুসারে বিচার কার্য নিৰ্ব্বাহ করিতে হইবে না, তথাচ উক্ত ব্যবস্থা শাস্ত্রে তাহা দক্ষত থাকিলে বুঝা যাইবে যে, আইন শিক্ষা সম্বন্ধে এব বিচারকের কৰ্ত্তব্য নিৰ্ব্বাহ বিষয়ে তাহার ক্ষমতা জন্মিয়াছে এবং এক প্রকার ব্যবস্থা শাস্ত্রের জ্ঞান লাভ করিলে তাহা পক্ষে সহজ হইবে। যেমন প্রাচীন ও অপ্রচলিত ভাষা সক শিক্ষা করিলে, আধুনিক ও প্রচলিত ভাষা শিক্ষার অন্ত প্রকা ব্যবস্থার জ্ঞান লাভ করা সুবিধা হয়। এই বিষয়টা এ প্রয়োজনীয় যে, এই নিয়মট লঙ্ঘন করিয়া কর্তৃপক্ষদিগের মংে কেহ ব্যবস্থাশাস্ত্র বিষয়ে অনভিজ্ঞ সিভিলিয়ানকে বিচারকে আসন কখন প্রদান করিবেন না। ভারতবর্ষীয়দিগের পদোন্নতি। রাজা রাজমোহন রায় ভারতবর্ষীয়দিগের পদোন্নতি বিঘা