পাতা:মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত.djvu/২২৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


স্বৰ্গারোহণ । ২১৯ বণিক ছিলেন। তিনি ডাক্তার কার্পেণ্টারের ੋਂ একজন সভ্য ছিলেন। তাহার মৃত্যুর অল্পদিন পরেই তাহার স্ত্রীর মৃত্যু হইল। তখন ডাক্তার কাপেন্টারের উপরে তাহাদের একমাত্র সস্তান কুমারী কাসেলের তত্ত্বাবধানের ভার পড়িল । রামমোহন রায় লগুন হইতে ব্রিষ্টলে আসিয়া তৃপ্তি লাভ করিলেন । লণ্ডনের গোলমাল ও ব্যস্ততার মধ্য হইতে আসিয়া, ব্রিষ্টলের শাস্তভাব তাহার পক্ষে বিশেষ তৃপ্তিকর হইল। "তিনি প্রায় প্রতিদিন ষ্টেপল্টন গ্রোভ ভবনে অথবা ডাক্তার কাপেণ্টারের ভবনে তাহার সহিত কথোপকথন করিতেন। ডাক্তার কাপেণ্টার রামমোহন রায়কে যতই দেখিতে লাগিলেন, ও তাহার সহিত ঘনিষ্টতা যতই বৃদ্ধি হইতে লাগিল, ততই তাহার প্রতি তাহার প্রীতি ও ভক্তি বৃদ্ধি হইতে লাগিল। যে উপাসনালয়ে ডাক্তার কার্পেণ্টার আচার্য্যের কার্য্য করিতেন, রাজা রামমোহন রায় তথায় দুই রবিবার উপস্থিত হইয়া, উপাসনায় যোগ দিয়াছিলেন। তৃতীয় রবিবারে ডাক্তার কার্পেণ্টারের সহযোগী রেভারেও আর বি স্প্যাও ডাক্তার কাপেণ্টারের প্রতিনিধি স্বরূপ উপাসনালয়ের কার্য্য নিৰ্ব্বাহ করিয়াছিলেন। তিনি মঞ্চেষ্টারের নূতন কলেজের জন্য উপাসকমণ্ডলীর নিকট সাহায্য প্রার্থনা করেন। ইহার পরে রামমোহন রায় তাহাকে বলিয়। পাঠাইয় ছিলেন যে, তিনি তাহার সহিত কোন সময়ে সাক্ষাং করিবেন এবং তাহাদ্বারা উক্ত কলেজে কিছু অর্থসাহায্য প্রেরণ করিবেন।