পাতা:মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত.djvu/২২৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


স্বৰ্গারোহণ। २१e প্রশ্নের সন্ধুত্তর প্রদান করিয়াছিলেন। পঞ্চাশং বর্ষ পূৰ্ব্বে যে অসাধারণ প্রতিভার উন্মেষ দেখিয়া বঙ্গভূমির এক সামান্ত গ্রামবাসীগণ চমৎকৃত হইয়াছিল, যে অসাধারণ প্রতিভা প্রাচীন ও আধুনিক বিবিধ ভাষা ও বিবিধ শাস্ত্রে সম্যক্ ব্যুৎপত্তি অর্জন করিয়া লোককে আশ্চর্য্যে স্তব্ধ করিয়াছিল, যে অসাধারণ প্রতিভা হিন্দু, মুসলমান, খ্ৰীষ্টিয়ান সকল ধৰ্ম্মসম্প্রদায়ভুক্ত প্রধান প্রধান পণ্ডিতবর্গকে বিচার যুদ্ধে পরাস্ত করিয়া, ভাগীরথীতীরে, পৌত্তলিকতার দুর্ভেদ্য দুর্গ মধ্যে “একমেবাদ্বিতীয়ং” পরমেশ্বরের বিজয়-নিশান উড্ডীন করিয়াছিল, অদ্য কৃষ্টল নগরে সমবেত মহাপণ্ডিতবর্গ সেই অসাধারণ প্রতিভার পরিচয় পাইয়া আশ্চর্য্যে স্তম্ভিত হইলেন। কিন্তু হায় । ইহাই তাহার শেষ কাৰ্য্য ! তাহার সুমহং জীবন-নাটকের ইহাই শেষ অঙ্ক ! কি বলিতেছি । যে আত্মা অনস্ত জ্ঞান, প্রেম, পুণ্যের অধিকারী,— অনন্তকাল যে আত্মার পরমায়ু, তাহার কার্য্যের কি শেষ আছে ? ডাক্তার কাপেণ্টার বলিতেছেন ;-পর দিন প্রাতঃকালে ( ১৭ ই সেপ্টেম্বর ) আমার সহিত র্তাহার ইহজীবনের শেষ দেখা হইয়াছিল। প্রাতঃকালে আহার করিতে আসিতে তাহার বিলম্ব হইয়াছিল। তাহাকে দেখিয়া আমি অনুভব করিলাম যে, পূৰ্ব্বদিনের পরিশ্রম ও উৎসাহে তিনি প্রান্ত হইয় পড়িয়াছেন। আমি ব্যগ্র ভাবে ইচ্ছা করিলাম যে, তিনি সে দিন বিশ্রাম করেন। তাহার সম্পূর্ণ বিশ্রামের সময় যে নিকটবৰ্ত্তী, তাহা তাহার নিজের অন্তঃকরণ ভিন্ন অন্য কেহ তখন মনে করিতে পারিত না। তথাচ মানসিক শক্তিহানির কোন চিহ্ন