পাতা:মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত.djvu/৪৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গৃহপ্রত্যাগমন, শাস্ত্রচর্চা, পুনৰ্ব্বৰ্জন ও বিষয়কৰ্ম্ম । ৩৯ পুত্রের বিবাহ ও দলাদলি । রামমোহন রায়ের জ্যেষ্ঠ পুত্র রাধাপ্রসাদের বিবাহের সময় হিন্দুসমাজে মহা আন্দোলন উপস্থিত হইয়াছিল। কিন্তু আন্দোলনকারিগণ কৃতকাৰ্য্য হইতে পারেন নাই। হুগলি জিলার অন্তর্গত ইড়পাড়া গ্রামে জনৈক সস্থান্তব্যক্তি রাধাপ্রসাদকে কন্যা সম্প্রদান করেন। গ্রামে উৎপাত । কৃষ্ণনগরের সন্নিহিত রামনগর গ্রামে রামজয় বটব্যাল নামক এক ব্যক্তি চারি পাচ হাজার লোক লইয়৷ এক প্রধান দলপতি হয়। রামমোহন রায় পৌত্তলিকতার প্রতিবাদ ও ব্রহ্মজ্ঞান প্রচার করেন বলিয়া সে ব্যক্তি তাহাকে নানা প্রকারে কষ্ট দিতে আরম্ভ করিয়াছিল। বটব্যালের লোক সকল অতি প্রত্যুষে আসিয়া রামমোহন রায়ের বাটীর নিকট ক্রমাগত কুকুটধ্বনি করিত ; এবং সন্ধ্যার পর তাহার অন্তঃপুরে গোহাড় প্রভৃতি পদার্থ নিক্ষেপ করিত। এই প্রকার অত্যাচারদ্বারা পরিবারগণকে ব্যতিব্যস্ত করিয়া তুলিল। কিন্তু রামমোহন রায়ের অসাধারণ ধৈর্য্য কিছুতেই পরাভব মানিল না। কোন প্রকার প্রতিহিংসা করা দূরে থাকুক, তিনি সৰ্ব্বদাই সস্তাবদ্বারা অসম্ভাবকে জর করিতে চেষ্টা করিতেন। কিন্তু তাহার মিষ্ট’ কথায় ও সম্পদেশে তাহারা ভুলিবার লোক ছিল ন4 বরং তাহাকে একান্ত ধৈৰ্য্যশীল দেখিয়া উৎপাত আরও