পাতা:মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত.djvu/৫১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৪৬ মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত । আহারে তাহাদিগের সঙ্গে যোগ দিতে পারিতেন না। পৌত্তলিকতা ছাড়িতে চান না, কিন্তু আচার ব্যবহার ক্রমে ক্রমে পরিবর্তন করিতে তখনকার লোকেরা বাধিত হইয়াছিলেন” ইত্যাদি। আন্দোলন । রামমোহন রায় কলিকাতায় আসিয়া মাণিকতলায় লোয়ার সারকিউলার রোডে একটা বাট ক্রয় করিয়া ও উহ। ইংরেজী প্রণালীতে সজ্জিত করিয়া তথায় বাস করেন। বহুকাল হইতে র্তাহার আশা ছিল যে, বিষয় কৰ্ম্ম হইতে অবস্থত হইয়। স্বদেশে উদ্ধারে জীবন সমর্পণ করবেন। এতদিনে তাহার আশা পূ হইল । পৌত্তলিকতা ও সৰ্ব্বপ্রকার উপধৰ্ম্মের বিরুদ্ধে রাম মোহন রায়ের রণভেরী এই স্থান হইতে বাজিয়া উঠিল । কলি কাতায় হুল স্কুল পড়িয়া গেল। কেবল কলিকাতায় কেন সমুদায় বঙ্গভূমিতে আন্দোলনের তরঙ্গ বহিল। বাবুদিগে বৈঠকখানায়, ভট্টাচার্য্যের চতুষ্পাঠীতে, পল্লীগ্রামের চণ্ডীমণ্ডে যেখানে সেখানে রামমোহন রায়ের কথা। অন্তঃপুর মধ্যেং আন্দোলনের স্রোত প্রবাহিত হইতে অবশিষ্ট থাকিল না। রামমোহন রায়ের সদ্‌গুণ । রামমোহন রায় অনেকগুলি লোককে বশীভূত করিয় ছিলেন । তন্মধ্যে সে সময়ে কয়েকজন প্রধান প্রধান লোব খছিলেন। বাস্তবিক তিনি যে প্রকার সঙ্গে শালী ব্যক্তি ছিলেন তাহাতে এপ্রকার হওয়া কিছুই বিচিত্র নহে। রামমোহনরায়ে