পাতা:মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত.djvu/৭১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৬৬ মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত। বাহে প্রকাশ পায়, সেইরূপ রামকৃষ্ণাদি শরীরে ব্রহ্ম প্রকাশ পায়েন ; আর সেই দীপ যেমন স্থল আবরণ ঘটাদি মধ্যে থাকিলে তাহার জ্যোতি বাহে প্রকাশ পায় না, সেইরূপ ব্ৰহ্ম | স্থাবরাদি শরীরে প্রকাশ পায়েন না ; অতএব আব্রহ্মস্তম্ব পর্য্যন্ত ব্ৰহ্ম সত্তার তারতম্য নাই। অহং যুদ্রমসাবাৰ্য্য ইমে চ দ্বারকৌকসঃ । সৰ্ব্বেপ্যেবং যদুশ্রেষ্ঠ বিমৃগ্যাঃ সচরাচরং ॥ ভাগবতং ॥ হে যদুবংশ শ্রেষ্ঠ ! আমি ও তোমরা ও এই বলদেব, আর দ্বারকাবাসী যাবৎ লোক, এ সকলকে ব্ৰহ্ম করিয়া জান। কেবল এ সকলকে ব্ৰহ্ম জানিবে, এমত নহে ; কিন্তু স্থাবর জঙ্গমের সহিত সমুদয় জগৎকে ব্ৰহ্ম করিয়া জান। বহুনি মে ব্যতীতানি জন্মানি তব চাৰ্জুন। তান্ত্যহং বেদ সৰ্ব্বাণি ন ত্বং বেদ্ধ পরস্তুপ। গীতা ॥ হে অৰ্জুন ! হে শক্ৰতাপজনক ! আমার অনেক জন্ম অতীত হইয়াছে এবং তোমারও অনেক জন্ম অতীত হইয়াছে; কিন্তু বিদ্যা মায়ার দ্বারা আমার চৈতন্য আবৃত নহে, এ প্রযুক্ত আমি তাহা সকল জানিতেছি ; আর তোমার চৈতন্ত অবিদ্যা মায়াতে আবৃত আছে, এই হেতু তুমি তাহ জানিতেছ না। ব্রহ্মৈবেদমমৃতং পুরস্তাদ্ব হ্ম পশ্চাদ্বন্ধ দক্ষিণতশ্চোত্তরেণ। অধশ্চোদ্ধঞ্চ প্রস্থতং ব্রহ্মৈবেদং বিশ্বমিদং বরিষ্ঠং ॥মুণ্ডকশ্রুতিঃt সম্মুখে ও পশ্চাতে এবং দক্ষিণে ও বামে অধঃ উন্ধে তোমার অবিদ্যা দোষের দ্বারা যাহা যাহা নাম রূপে প্রকাশুমান দেখি