পাতা:মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত.djvu/৭৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৬৮ মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত। কছেন, আমারদিগের ইহাতে সাধ্য কি ? কিন্তু এস্থলে জানা কৰ্ত্তব্য যে, আত্মার শ্রবণ মননাদি বিনা কোন এক অবয়বীকে সাক্ষাৎ ব্রহ্ম জানিয়া উপাসনা করাতে কদাপি মুক্তিভাগী হয় ন, সকল শ্রীতি এক বাক্যতায় ইহা প্রতিপন্ন করিয়াছেন” ईऊाॉप्ति । 泰 攀 亲 亲 亲 আর লেখেন যে “ঐ এক উপাস্য সগুণ ব্ৰহ্ম এই জগতের স্বষ্ট্রি ও প্রলয় করিতেছেন, ইহাতে তাহ হইতে ভিন্ন বস্তু কি আছে যে, তাহার উপাসনা করাতে র্তাহার উপাসনা সিদ্ধ হইবেক না,’’ উত্তর ; জগতে ব্ৰহ্ম হইতে ভিন্ন বস্তু নাই, অতএব যে কোন বস্তুর উপাসনা ব্রহ্মোদেশে করিলে যদি ব্রহ্মের উপাসনা সিদ্ধ হইতে পারে, তবে এযুক্তিক্রমে কি দেবতা, কি মনুষ্য, কি পশু, কি পক্ষী সকলের উপাসনার তুল্যরূপে বিধি পাওয়া গেল। তবে নিকটস্থ স্থাবর জঙ্গম ত্যাগ করিয়া দুরন্থ দেবতা বিগ্রহের উপাসনা কষ্টসাধ্য এবং বিশেষ প্রয়োজনাভাব। অতএব তাহাতে প্রবৃত্ত হওয়া যুক্তিসিদ্ধ নহে। যদি বল দূরস্থ দেবতা বিগ্রহ এবং নিকটস্থ স্থাবরজঙ্গমের উপাসনা করিলে তুল্য রূপেই যদ্যপি ঐ সৰ্ব্বব্যাপী পরমেশ্বরের আরাধনা সিদ্ধ হয়, তথাপি শাস্ত্রে ঐ সকল দেববিগ্রহের পূজা করিবার অনুমতির আধিক্য আছে ; অতএব শাস্ত্রানুসারে দেববিগ্রহের পূজা করিয়া থাকি। তাহার উত্তর ; যদি শাস্ত্রানুসারে দেববিগ্রহের উপাসনা কৰ্ত্তব্য হয়, তবে ঐ শাস্ত্রানুসারেই বুদ্ধিমান ব্যক্তির পরমাত্মার উপাসনা সৰ্ব্বতোভাবে কর্তব্য, কারণ শাস্ত্রে কহিয়াছেন