পাতা:মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত.djvu/৭৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কলিকাতা বাস। צף চারি প্রশ্নের উত্তরপ্রকাশ । চারি প্রশ্নের উত্তর। কলিকাতানিবাসী কাশীনাথ তর্কপঞ্চানন,ধৰ্ম্মসংস্থাপনাকাজী নাম গ্রহণপূর্বক, রাজা রামমোহন রায়কে নিম্নলিখিত চারিট প্রশ্ন করেন। “(১) ইদানীন্তন ভাক্ত তত্ত্বজ্ঞানীরা এবং তাহাদের সংসৰ্গীরা কি নিগুঢ় শাস্ত্রাবলোকন করিয়া স্ব স্ব জাতীয় ধৰ্ম্ম কৰ্ম্ম পরিত্যাগ করিতেছেন ? এবং তাহাদের সহিত সংসর্গ অকৰ্ত্তব্য কি না ? (২) সদাচার সদ্ব্যবহারহীন ব্ৰহ্মজ্ঞানাভিমানীর যজ্ঞোপবীত ধারণ,নিরর্থক কিনা ? (৩) ব্রাহ্মণ সজ্জনের পক্ষে অবৈধ হিংসাদ্বারা আত্মোদরভরণ অনুচিত কি না ? (৪) লজ্জা ও ধৰ্ম্মভয় পরিত্যাগ করিয়া যাহারা বৃথা কেশচ্ছেদন, সুরাপান ও ব্যভিচার করেন, তাহার বিরুদ্ধকারী কি না ?” এই সকল প্রশ্লে, রামমোহন রায়ের কোন কোন মত ও ব্যবহারের প্রতি লক্ষ্য করা হইয়াছিল। তিনি ইহার উত্তরে বেদাদি শাস্ত্র হইতে প্রমাণ প্রয়োগ পূৰ্ব্বক প্রতিপন্ন করিয়াছিলেন যে, তিনি ও র্তাহার বন্ধুজন বেদাদি শাস্ত্রানুসারেই ব্ৰহ্মজ্ঞানের চর্চা করিতেছেন, ভাক্ত তত্ত্বজ্ঞানী এবং ভাক্ত কৰ্ম্মী উভয়েই সমান অপরাধী ; আধুনিক তত্ত্বজ্ঞানীর উপবীত ধারণ নিরর্থক নহে ; বৈধমাংস ও সুরাপান শাস্ত্রবিরুদ্ধ নহে ; ব্যভিচার মহাপাতক, কিন্তু তন্ত্রোক্ত শৈববিবাহে দোষ নাই। চতুর্থ প্রশ্নের উত্তরে,রামমোহন রায় যাহালিথিয়াছেন,তাহ হইতে নিয়ে কিয়দংশ উদ্ভূত হইল –“মন্ত্রার্থের স্ফূৰ্ত্তি হইবার উদেশে এবং ব্ৰহ্মজ্ঞানের স্থিরতার উদ্দেশে মদ্য পান করিবেক ;