পাতা:মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত.djvu/৮৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৮৪ মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত। সামান্ত লৌকিক প্রয়োজনীয় শত শত কৰ্ম্ম করেন, সে সময়ে তাহাদিগের মধ্যে কেহ শাস্ত্র এবং পূর্বপরম্পরার নামও করেন না; যেমন আধুনিক কুলের নিয়ম ; যাহা পূৰ্ব্বপরম্পরার বিপরীত এবং শাস্ত্রবিরুদ্ধ। ইংরাজ-যাহাকে ম্লেচ্ছ কহেন, তাহাকে অধ্যয়ন করান কোন শাস্ত্রে আর কোন পূৰ্ব্বপরম্পরায় ছিল ? কাগজ যে সাক্ষাৎ যবনের অন্ন তাহাতে গ্রন্থাদি লেখা কোন শাস্ত্রবিহিত আর পরম্পরাসিদ্ধ হয় ? ইংরাজের উচ্ছিষ্ট করা আর্দ্র ওয়েফর দিয়া বদ্ধ করা পত্র, যত্বপূর্বক হস্তে গ্রহণ কর, কোন পরম্পরাতে পাওয়া যায় ? আপনার বাটতে দেবতার পূজাতে যাহাকে ম্লেচ্ছ কহেন, তাহাকে নিমন্ত্রণ করা আর দেবতার সমীপে আহারাদি করান কোন পরম্পরাসিদ্ধ श् ?” অন্তান্ত সম্প্রদায়ের মধ্যে একেশ্বরবাদ প্রচার । রামমোহন রায়ের উদার হৃদয় কেবল হিন্দুসমাজে স্বমতপ্রচার করিয়া তৃপ্তিলাভ করে নাই। হিন্দু, কি মুসলমান, কি খ্ৰীষ্টীয়ান সকল সম্প্রদায়ের মধ্যে যাহাতে বিশুদ্ধ একেশ্বরবাদ প্রচলিত হয়, এবং সেই একমাত্র, নিরাকার, সৰ্ব্বব্যাপী পরব্রহ্ম ভিন্ন অপর কাহারও উপাসনা স্থান না পায়, ইহাই তাহার প্রাণগত যত্ব ছিল। “তোহফতুল মোহদীন” নামক গ্রন্থ প্রচারের কথা পূৰ্ব্বে বলা হইয়াছে। মুসলমানদিগের মধ্যে সত্য প্রচারই উক্ত পুস্তকের বিশেষ উদ্দেশু।