পাতা:মহাত্মা রাজা রামমোহন রায়ের জীবনচরিত.djvu/৯৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কলিকাতা বাস । br> ইণ্ডিয়া গেজেটের ইংরেজ সম্পাদক লিখিলেন যে, এই বিচারে ইহাই প্রতিপন্ন হইল যে, রামমোহন রায় এদেশে এখনও তাহার সমতুল্য লোক প্রাপ্ত হন নাই। রামমোহন রায়ের খৃষ্টধৰ্ম্ম বিষয়ক এই সকল বিচারপুস্তক অতি শীঘ্রই লণ্ডন নগরে প্রকাশিত হইল। তাহার জীবদ্দশায় এবং তাহার মৃত্যুর পর অল্প দিনের মধ্যে ইয়োরোপ ও আমেরিকায় উক্ত গ্রন্থ সকলের অনেকগুলি সংস্করণ প্রকাশিত হইয়াছিল। ইংলণ্ডবাসীগণ উক্ত পুস্তক পাঠে একজন বাঙ্গালীর বিদ্যাবুদ্ধি দেখিয়া আশ্চৰ্য্য হইয়াছিলেন। পৌত্তলিকপ্ৰবোধ প্রকাশ। রামমোহন রায় ও মার্সম্যান সাহেবের কথা লইয়া যখন ইয়োরোপীয় ও দেশীয়সমাজে আন্দোলন চলিতেছিল, সেই সময়ে রামমোহন রায়ের এক জন শিষ্য বাবু ব্ৰজমোহনমজুম: দার, ধৰ্ম্মতলার ইউনিটেরিয়ান্‌ মুদ্রাযন্ত্র হইতে "পৌত্তলিক প্রবোধ” নামে একখানি পুস্তক প্রকাশ করিলেন। প্রচলিত পৌত্তলিকতার বিরুদ্ধে এমন স্বযুক্তিপূর্ণ গ্রন্থ আমরা কখন দেখি নাই। ইহাতে যেরূপ শাস্ত্রীয় জ্ঞান ও প্রখর তর্কশক্তি প্রকাশিত হইয়াছে, তাহ দেখিয়া কোন কোন বিজ্ঞ ব্যক্তি অনুমান করেন যে, উহা রাজা রামমোহন রায়েরই লিখিত। বেনামি পুস্তক প্রকাশ করা তাহার অভ্যাস ছিল; সুতরাং এ অনুমান অমূলক" বলিয়া একেবারে অগ্রাহ করা যায় না। যাহা হউক, উহা যে অন্ততঃ তাহার বিশেষ সাহায্যে লিখিত, তদ্বিষয়ে কোন সংশয়ই