পাতা:মহারাষ্ট্র-নৃপেন্দ্রকুমার বসু.djvu/১৫৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মহারাষ্ট্র 288 ন। নানা দলে বিভক্ত হইয় তাহারামুঘল অধিকারে উৎপাত আরম্ভ করিল। বারবার ঔরঙ্গজেবেরতোষাখন লুট হইল। পালাল্ল, বসন্তুগড়, পবনগড়, সাতারা প্রভৃতি আবার তাহার স্বগুগত করিল। টাকার শ্রাদ্ধ হইতে লাগিল, অথচ এই পাৰ্ব্বত্য মূষিকদের জন্দ্র করা গেল না। ১৭৮৪ খৃষ্টাব্দে তাহার নৰ্ম্মদ নদী পার হইয়া, মালব ও গুজরাট আক্রমণ করিয়া, চেন্নাথ ও সরদেশমুখী কর আদায় করিল। ফিরিবার পথে পুনরায় বুদ্ধানপুর, বেরার ও খাদেশ লুট করিল। হাজার হাজার গ্রাম, শত শত মুঘল ছাউনী পুড়ায়। ভস্মসাৎ করিয়া দিল। কুড়ি বৎসরের উপর দক্ষিণাতে থাকিয়া ঔরঙ্গজেব অধীর হইয়া পড়িলেন। ওদিকে দিল্লীতে উছার প্রাণ পড়িয়া আছে, এদিকে জীবনপ্রদীপও নিকুনিৰু হইয় আলিয়াছে। ১৭•৭ সালে ঔরঙ্গজেব আহমেদনগরে প্রাণত্যাগ করিলেন। র্তাহার মৃত্যুর পর মাছ মুক্তি পাইয়া মহারাষ্ট্রে ফিরিয়া অলিলেন । র্তাহার সিংহাসনের দাবী তারাবাঈ উড়াইয়া দিলেও যা জোর করিয়া তারায় আসিয়া সিংহাসন অধিকার করিলেন (১৭%)। মহারাষ্ট্র দলপতিদের মধ্যে ঘরোয়া বিবাদের সূত্রপাত হইল। কিন্তু প্রতাপাস্থিত সেনাপতি ধাগ্রাঙ্গী যাদব সাহুর পক্ষে যোগ দেওয়ায়, তারাবাঈয়ের পক্ষ খুৰ্বল হইয় পড়িল। তারপর তারাবাঈয়ের পুত্র তৃতীয় শিবাজী বসম্ভ রোগে মারা গেলে, সকলে মনে করিণ-বুধি এইবার ঘরোয় বিবাদের ইতি হইল। কিন্তু রামচঞ্জ পদ্ধ কোলাপুরে