পাতা:মহারাষ্ট্র-নৃপেন্দ্রকুমার বসু.djvu/৩১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কারাষ্ট্র ask উত্তর মহারাষ্ট্র ও গুজরাটের গ্রাম্য মাডব্যয়ের নাম পাটেল ; মুসলমান আমলে ইকারে নাম হয় 'মোকদম' । হিন্দু নীতিশাস্ত্রে ইংগিক গ্রামাধিকারী বলা হইত। ইহার গ্রাম্য সমাজের কৰ্ত্ত ও শাসন-বিচারের সর্বোচ্চ কৰ্ম্মচারী ছিলেন। মামূল-মোকৰ্দমার নিম্পত্তি সাধারণতঃ পঞ্চায়েৎ প্রথায় হইত। এই পঞ্চায়েঙে অনেক সময় পাটেলই সভাপতিত্ব করিতেন। কিন্তু গুরুতর কেল্লয়ারী অপরাধে পাটেলগণ কোনরূপ হস্তক্ষেপ কঠিতে পারিক্তেন না। তঁহায় উৰ্দ্ধস্তন কৰ্ম্মচারীর নিকট অপরাধকে পাঠাইয়া দিতেন। চেগুলা ও কুলক্রানি সৰ্ব্ববিষয়ে তাহাকে সাহায্য করিতেন। পাটেলর প্রায়শঃ পুত্র वर्षरी कज़िा छाडिह यश इ६::ई मिठछि इशख्न । रुहन প্রদেশের বহুলে খোট নামক আমি কৃষিজীবীদের মধ্য হইতেই সর্দার বা পটেল নির্বাচিত হইত । কুলক্লানি ছিলেন যেন গ্রাম্য ব্লাঙ্গার গ্রাম্য মন্ত্রী। গ্রামের লোকমাখ, জন্মমৃত্যু, গুমিল্পমার হিসাধপত্র রাখা, গ্রামশাসনে পার্টলকে পরামর্শ দেওয়া ছিল ইহাদের প্রধান কাজ । ইহায় খাজনা আদায়ের ব্যবস্থা করিড়েন এবং প্রতি কিস্তির খাজনা আদায় ইয়া, পাটেলের মারফৎ রাজ-ক্তবিলে নিয়মিত পঠাইয়া দিতেন। কুলক্রানিদিগকে কোন কোন প্রাচীন পণ্ডিত 'গ্ৰাম্যলেখক বলিয়া উল্লেখ করিয়াছেন । ব্রাহ্মণগণই নামারণতঃ এই পদে বসিতেন। সাধারণতঃ ফসলের এক ষষ্ঠাংশ রাজকর স্বরূপ আদায় করা