পাতা:মহারাষ্ট্র-নৃপেন্দ্রকুমার বসু.djvu/৫১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মহারাষ্ট্র 8 পৰ্ব্বত-পাশ্ব হইতে পৈশাচিক উল্লাসে মুসলমান সৈন্থের উপর বfপাইয় পড়িল। সাত হাজার সৈন্ত কচুর মতো মহারাষ্ট্রদের শাণিত খড়গে কাট পড়িল। মল্পিক সাহেব কোনরূপে প্রাণ লষ্টযু ও মানটুকু খোয়াইয়া স্বদেশে ফিরিয়া আদিলেন। ইহার পর ১৫/১৬ বৎসরকাল তার কোন অভিযান এই অঞ্চলে প্রেরিত হয় নাই। প্রথম বাহমানী হুলতান স্বালাউদ্দিন হাসানের সময় হইতেই গুলবৰ্গ সাম্রাজ্য চারটি প্রদেশে (তরফ') বিভক্ত হইয়াছিল ; এবং প্রত্যেক প্রদেশে এক একজন শাসনকর্তা বা তরফদার নিযুক্ত হইয়াছিলেন। প্রদেশগুলির নাম-গুলার্গ, ীেলতাবাদ, তৈঙ্গিন ও বেয়ার। তাহার পর এক-শত গঁচিশ বৎসরের মধ্যে তুঙ্গভদ্র তীরের প্রবল প্রতাপাম্বিত বিজয়নগর রাজ্যের বেণীর ভাগ, ওয়ারঙ্গল রাজ্য, ভৈলিঙ্গন রাজ্যের উত্তরাংশ ও ওড়িবার দক্ষিণ পূর্বাংশ এবং দক্ষিণ পশ্চিমে কোলাপুর হইতে গোয় পর্যন্ত ভূভাগ উহাদের অধিকারে আসিয়া পড়িল। আঞ্জকালকার খাদেশ, নাসিক, থান, কোলাবা প্রভৃতি কয়েকটি জেলা ও দুরারোহ পর্বতাঞ্চল ছাড়া সমস্ত মহারাষ্ট্রই তখন মুসলমানদের প্রজা ! ত্রয়োদশ সুলতানু মোহম্মদ শাহ, বাহমানীর উজীর খাজা জাহান মাহমুদ গাওয়া এই বিস্তীর্ণ রাজ্যকে আর চারিটি প্রদেশে বিভক্ত রাখা যুক্তিযুক্ত মনে করিলেন না; কারণ তাহা হইলে প্রাদেশিক শাসনকৰ্ত্তাদের ক্ষমতা অত্যন্ত বাড়িয়া যায় এবং তাহার