পাতা:মানিক গ্রন্থাবলী (প্রথম খণ্ড).pdf/১৮৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Sbro হইবে। রিণি সুস্থ আর স্বাভাবিক অবস্থাতে আছে ধরিয়া লইয়াই তার সঙ্গে তাকে আলাপ করিতে লইবে । নতুবা নিজে সে অসুস্থ হইয়া পডিাবে কয়েক মুহুর্জের মধ্যে। তোমার বাবাকে ওসব বলতে গেলে কেন রিণি ? রিণির মুখের বিস্ময় ফুটিয়া উঠিল।-বাবাকে ? কি বলেছি। বাবাকে ? আমার সম্বন্ধে ? তোমার সম্বন্ধে ? কই না, কিছুই তো বলিনি বাবাকে তোমার সম্বন্ধে ? বাবার সঙ্গে আমি কথাই বলি না যে ! পলকচীন দৃষ্টিতে রিণি রাজকুম্বারের চোখের দিকে সোজা তাকাইয়া থাকে, তার মুখের ভাবের সামান্য একটু পরিবর্তনও ঘটে না । তারপর ধীরে ধীরে স্পষ্ট হইয়া উঠে ক্রোধের অভিব্যক্তি। দাড়াও ডাকছি। বাবাকে । রাজকুমার ব্যস্ত হইয়া বলে, থাক, রিণি, থাক। বারণ কাণে না তুলিয়া সিঁড়ির মাথা পৰ্য্যন্ত আগাইয়া গিয়া তীক্ষ্ম কণ্ঠে চীৎকার করিয়া রিণি স্যার কে, এলকে ডাকিতে থাকে, বাবা ? বাবা ? ড্যাডি ? ড্যাডি ? স্যর কে, এল উপরে • আসিতেই হাত ধরিয়া তাকে সে টানিয়া আনে রাজকুমারের সামনে, কঁাদ কঁাদ হইয়া বলে, রাজুদার নামে তোমায় আমি কি বলেছি বাবা ? স্যর কে, এল শান্ত কণ্ঠে বলেন, কই না, কিছুই তো * বলনি তুমি ? বলেছি। রাজুদা আমার বেষ্ট ফ্রেণ্ড, তাই বলেছি। নিন্দে করে কিছু বলিনি। বলেছি বাবা ? न। बल नि । নিশ্চিত হইয়া রাজকুমারের পাশে বসিয়া রিণি গভীর নিঃশ্বাস ফেলিয়া । বিড় বিড় করিয়া আরও কত কি সে বলিতে লাগিল বুঝা গেল না। একটু অপেক্ষা করিয়া স্যার কে, এল চলিয়া গেলেন। রাজকুমার বলিল, একটু শুয়ে থাকবে রিণি ? রিণি উদাস ভাবে বলিল, তুমি বললে শুতে পারি। তোমার শরীর ভাল নেই, শুয়েই থাক। আমি এখুনি ঘুরে আসছি। - তুমি আর আসবে না। আসব, নিশ্চয় আসব। বিনা বিধায় রাজকুমার তাকে শিশুর মত দু'হাতে বুকে তুলিয়া বিছানায় লইয়া গিয়া শোয়াইয়া দিল। তার অনেক দিনের লিপষ্টিক ঘষা ঠোঁটে আজ শুকনো রক্ত মাখা হইয়া আছে। সন্তৰ্পণে সেখানে চুম্বন করিয়া সে নীরবে বাহির amal Cሻማ ! নিজের ঘরে তার কে, এল টেবিলে মাথা রাখিয়া বসিয়া ছিলেন, টেবিলে তার মাথার একদিকে একটি আধা খালি মদের atf-stro বোতল অন্যদিকে শূন্য একটি গেলাস । পাইয়া মুখ তুলিলেন। ब्रांडांग cद्धक ए7ांडेन ? ब्रांख्रिकूभांद्र ख्रिद्धांगी कब्रिल । স্যার কে, এল মাথা নাড়িলেন।-ইনস্যানিটি । ডাক্তার কি বললেন ? এখন আর ওর বেশী কি বলবেন ? সারিতেও পারে, নাও সারিতে পারে। ভাল রকম এগজামিনের পরে হয়তো পরস্পরের মাথার পাশ দিয়া পিছনের দেয়ালে চোখ পাতিয়া দুজনে অনেকক্ষণ নীরবে মুখোমুখি বসিয়া রহিল। তারপর স্যার কে, এল ধীরে ধীরে বলির্লেন, আমার আলমারি খুলে বোতল নিয়ে কদিন নাকি খুব ড্রিঙ্ক করছিল। কিছু টের পাইনি। ডাক্তার সন্দেহ করছেন খুব ধীরে ধীরে ইনস্যানিটি আসছিল, অতিরিক্ত ড্রিঙ্ক করার ফলে দু’চার দিনের মধ্যে এটা হয়েছে। রিণি ড্রিঙ্ক করত নাকি জানো ? কদাচিৎ কখনো একটু চুমুক দিয়ে থাকতে পারে, সে किछु नम्र । স্যার কে, এল-এর মাথা নীচে নামিতে নামিতে প্ৰায় গেলাসে ঠেকিয়া গিয়াছিল। তেমনি ভাবেই তিনি জিজ্ঞাসা করিলেন, তোমার নামে রিণি যা বলেছিল রাজু ? जस दकछन | তোমায় নিয়ে কেন ? আবার দুজনে নীরবে মুখোমুখি বসিয়া রহিল। রাজকুমারের সাড়া রিণির জন্য সকলের গভীর সহানুভূতি জাগিয়াছে। খবর শুনিয়া মালতী তো একেবারে কঁাদিয়াই ফেলিয়াছিল। রিণিকে কে পছন্দ করিত না এখন আর জানিবার উপায় নাই। একেবারে পাগল হইয়া রিণি শত্রু মিত্ৰ সকলের জীবনে বিষাদের ছায়াপাত করিয়া ছাড়িয়াছে। দুঃখবোধ অনেকের আরও আন্তরিক হইয়াছে এইজন্য যে তাদের কেবলই মনে হইয়াছে, সকলের মন টানিবার জন্য রিণি যেন ইচ্ছা! করিয়া নিজেকে পাগল করিয়াছে। অহঙ্কারী আত্ম-সচেতন রিণিকে আর কেউ মনে রাখে না, ঈৰ্ষা ও বিদ্বেষ সকলে ভুলিয়া গিয়াছে। এখন শুধু মনে পড়ে কি তীব্র অভিমান ছিল মেয়েটার, আঘাত গ্রহণের অনুভূতি তার চড়া সুরে বাধা সরু তারের মত মৃদু একটু ছোয়াচেও কি ভাবে সাড়া দিত। সরসী অত্যন্ত বিচলিতভাবে রাজকুমারকে জিজ্ঞাসা করে, ও কেন পাগল হয়ে গেল রাজু ? রাজকুমার নিৰ্বোধের মত পুনরাবৃত্তি করে, কেন পাগল C: c?iu ?