পাতা:মানিক গ্রন্থাবলী (প্রথম খণ্ড).pdf/৫৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ará, “খুলের মাহিনীটা দিয়া দিল, চাহিলে সুপ্রভার কাছে BBDL SDD BBDB SzLE DBBDSDD DDB Bz করিল। এবার বড় শীত পড়িয়াছে। বিধানের গরম জামা গতবার ছোট হইয়া গিয়াছিল, ছেলেটা হু হু করিয়া বড় হইয়া উঠিতেছে, এ-বছর নূতন একটা জামা কিনিয়া দিতে পারিলে ভাল হইত। আলোয়ানটাও তাহার ছিাড়িয়া গিয়াছে। ওদের বেশ-ভূষা চাহিয়া দেখিতে শ্যামার চোখে জল আসে। বাড়িবার মুখে বছর বছর ওদের পোষাক বদলানো দরকার, পুরানো সেলাই-করা আঁটো জামা পরিয়া ওদের ভিখারির সন্তানের মত দেখায়, শুধু সাবান দিয়া জামাকাপড়গুলি আর যেন সাফ হইতে চায় না, কেমন লালচে রঙ ধরিয়া যায়। পূজার সময় রাখাল ওদের একখানি করিয়া তাতের কাপড় দিয়াছিল, মানাইয়া পরা চলে এমন জামা নাই বলিয়া বিধান লজ্জায় সে কাপড় একদিনও পরে নাই। মনটা শু্যামা ঠিক করিতে পারে না। মন্দার কথাগুলি মনের মধ্যে ঘুরিতে থাকে। রাখালের সঙ্গে একদিন সে এ বিষয়ে পরামর্শ করিল। রাখালও বাড়িটা বিক্রি করার পরামর্শই দিল । বলিল, বাড়িভাড়া দিবার হাঙ্গামা কি সহজ। অর্ধেক বছর বাড়ি হয়ত খালিই পড়িয়া থাকিবে, ভাড়াটে জুটলেও ভাড়া যে নিয়মিত পাওয়া যাইবে তারও কোন মানে নাই, একেবারে না পাওয়াও অসম্ভব নয়। তারপর বাড়ির পিছনে খরচ নাই ? পুরানো বাড়ি, মাঝে মাঝে মেরামত করিতে হইবে, বছর বছর চুণকাম করিয়া না দিলে ভাড়াটে থাকিবে না,-ড়েন নেওয়া হইয়াছে শু্যামার বাড়িতে ? এবার হয়ত ড়েন না লইলে কর্পোরেশন ছাড়িবে না, সে অনেক খরচের কথা, শ্যামা কোথা হইতে খরচ করিবে ? বাড়ি পোষা হাতী পোষার সমান বৌঠান, বাড়ি তুমি CVs its বিধান রাত প্ৰায় এগারোটা অবধি পড়ে, বকুল মণি ওরা ঘুমাইয়া পড়ে অনেক আগে। সেদিন রাত্রে শুমা বিধানকে বলিল, খোকা, সবাই যে বাড়ি বিক্রি করে দিতে বলছে বাবা ? বিধানের সঙ্গে শুমা আজকাল নানা বিষয়ে পরামর্শ করে, * ভবিষ্যতের কত জল্পনা কল্পনা যে তাদের চলে তাহার অন্ত নাই। বিধান বলে, বড় হইয়া সে মন্ত চাকরি করিবে, তারপর শঙ্করের মত একটা মোটর কিনিবে। শঙ্করের মোটর ? শীতলের জেল হইবার পর শঙ্করের মোটরে তার যে স্কুলে যাওয়া বন্ধ হইয়াছিল। সে অপমান বিধান কি মনে করিয়া রাখিয়াছে ? রাত জাগিয়া তাই এত ওর পড়াশোনা ? শীতলের কথা বিধান কখনো বলে না । পড়া শেষ করিয়া ছেলে শুইতে আসিলে শ্যামা কতদিন প্ৰতীক্ষা করিয়াছে, চুপি চুপি বিধান হয়ত জিজ্ঞাসা করিবে, বাবা কবে ছাড়া পাবে BD D BDDDD DL KK DBDB D BB BBuB অভিমান ওর, হয়ত বাপের জেল হওয়ার লজ্জা ওকে মুক e করিয়া রাখে, পরের বাড়ি তারা যে এভাবে পড়িয়া আছে, এজন্য বােপকে দোবী করিয়া মনে হয়ত ও নালিশ পুরিয়া রাখিয়ছে। আলোটা নিভাইয়া শুষ্ঠামা বিধানের মাথার কাছে লেপের মধ্যে পা দুকাইয়া বসে। একপাশে ঘুমাইয়া আছে বকুল, মণি ও ফণী, এপাশে অবোধ বালক বুকে ক্ষোভ ও লজ্জা পুরিয়া এত রাত্রে জাগিয়া আছে। শ্যামা ছেলের বুকে একখানা হাত রাখে ৷ বেড়ার ফুটা দিয়া জ্যোৎসার কতকগুলি রেখা ঘরের ভিতরে আসিয়া পড়িয়াছে। বাগানে শিয়ালগুলি ডাক দিয়া নীরব হইল। বেড়ার ব্যবধান পার হইয়া পাশের ঘরে রাখালের মামাতো বোন রাজবালার স্বামীর সঙ্গে ফিস ফিস কথা শোনা যায়, রাজবালার স্বামী আদালতে পাঁচিশ টাকায় চাকরী করে। পাঁচশ টাকায় অত ফিস ফিস কথা ? শুমার স্বামী মাসে তিনশ’ টাকাও রোজগার করিয়াছে, নিজের বাড়িতে নিজের পাকা শয়নঘরে স্বামীর সঙ্গে অত কথা শ্যামা বলে নাই।--আর ওই চাপা হাসি ? staff: scs ক'দিন পরে শ্যামার বাড়ি-বিক্রয়-সমস্যার মীমাংসা হইয়া গেল। হারান ডাক্তার মণিঅর্ডারে পচিশটা টাকা পঠাইয়া DBBBDS DDBD DBD DBD DBuL BBDBDSDB পরিচিত লোক। ভাড়া আদায় করিয়া মাসে মাসে তিনিই শুষ্ঠামাকে পাঠাইয়া দিবেন। শু্যামার মুখে হাসি ফুটিল। পাঁচিশ টাকা ? পাচ টাকা ভাড়া বাড়িয়াছে ? এখন তাহার রাজবালার স্বামীর সমান উপজািন ৷ কপাল হইতে কয়েকটা দুশ্চিন্তার চিহ্ন এবার মুছিয়া ফেলা চলে। মাসখানেক পরে একদিন সকালে কোথা হইতে শঙ্কর আসিয়া হাজির। গায়ে রেজারের কোট, তলায় ষ্ট্রাইপ দেওয়া সার্ট, পরণে শান্তিপুরে ধুতি, পায়ে মোজা,-কলিকাতায় বোঝা যাইত না, এখানে তাহাকে শ্যামার ভারি বাবু মনে হইল, রাখালের এই বাড়িতে। শ্যামা রাধিতেছিল, পরণের কাপড়খানা তাহার ছেড়া হলুদমাখা, হাতে দুটি শাখা ছাড়া কিছু নাই। কলিকাতা হইতে কে একটি ছেলে তার BDD BBD DBD BDBDS S BDBB LLD DDD SDBD পারিয়াছিল। সে শঙ্কর ৷ শঙ্কর কেন বনগা আসিবে ? শুষ্ঠামাকে শঙ্কর। প্ৰণাম করিল। শ্যামার গর্বের সীমা রহিল না। মোটা হলুদ-মাখা ছোড়া কাপড় পরণে ? কি হইয়াছে তাহাতে । সুপ্ৰভা, মন্দা, রাজবালা সকলের কৌতুহলী দৃষ্টির সামনে রাজপুত্ৰ প্ৰণাম তো করিল তাহাকে । খুসি হইয়া শ্যামা বলিল, ষাট ষাট, বেঁচে থাক ৰাবা, বিদ্যাদিগগজ হও । কি আবেগ শুষ্ঠােমার আশীৰ্বাচনে | শঙ্করের মুখ লজ্জায় রাঙা হইয়া গেল। তারপর শুষ্ঠামা জিজ্ঞাসা করিল, বনগা এসেছি কেন শঙ্কর ?