পাতা:মায়াবাঁশী - রবীন্দ্রনাথ মিত্র.pdf/১৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।

মায়াবাঁশী

 এদিকে রাজকন্যা তেতালার জানলা খুলে দেখলেন, একশো খরগোষ রাখালের চার পাশে ঘুরে বেড়াচ্ছে। দেখেই তাঁর মুখ শুকিয়ে গেল। সর্ব্বনাশ! শেষে রাজকন্যার বিয়ে হবে গরুর রাখালের সঙ্গে! কি লজ্জার কথা! কি করবেন ভেবে না পেয়ে দাসীকে ডেকে ছেঁড়া জামা আর ভিক্ষার ঝুলি আনতে হুকুম করলেন। সেই ভিক্ষার ঝুলি কাঁধে করে আর ছেঁড়া জামা গায়ে দিয়ে রাজকন্যা চললেন রাখালের কাছে।

 রাখাল তখন নিশ্চিন্ত হয়ে ঘুমুচ্ছে, আর খরগোষগুলো কেউ মাথার কাছে, কেউ হাতের উপর শুয়ে আছে। রাজকন্যা এসে ডাকলেন। ধড়মড় ক’রে উঠে রাখাল চেয়ে দেখেই বুঝতে পারলে যে রাজকন্যা এসেছেন ভিখারিণীর বেশে।

 “কি চাও তুমি?” রাখাল জিজ্ঞাসা করলে। রাজকন্যা বললেন, “একটা খরগোষ দেবে আমাকে? বেশী নয় একটা, দাম দেব।”

 “কত দেবে?”

 “পাঁচ হাজার টাকা।”

 “ও দামে পাওয়া যায় না।”

 “দশ হাজার”

 “তাতেও না।”