পাতা:মিবার-গৌরব-কথা - হেমলতা দেবী.pdf/৬৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

শক্তসিংহ।

৬১

অস্ত্র দিয়া অস্থি মাংস কি কাটা যাইবে?” এই বলিয়া আপনার সুকোমল বাহুতে সজোরে তরবারি দিয়া এক আঘাত করিলেন; তৎক্ষণাৎ রক্তস্রোতে রাণার আসন ও সভাস্থল ভাসিয়া গেল। রাণা বিস্ময়ে পুত্রের মুখের দিকে চাহিলেন। মুহূর্ত্তের মধ্যে তাঁহার মুখ ক্রোধে রক্তবর্ণ হইয়া উঠিল। তিনি ভাবিলেন, দৈবজ্ঞ ঠিক বলিয়াছেন, কি ভয়ানক ব্যাপার! নিশ্চয় এই সন্তান বাঁচিয়া থাকিলে মিবারের সর্ব্বনাশ করিবে; এমন পুত্রের মৃত্যুই ভাল। এইরূপ স্থির করিয়া তখনই ঘাতককে বলিলেন, “যাও, এখনই ইহাকে বধ কর, এই কালসর্প বাঁচিয়া থাকিতে আমার আর শান্তি নাই।” অমনি রাণার আদেশ পালিত হইবার উদ্যোগ হইতে লাগিল। ঘাতক শক্তকে বধ্যভূমিতে লইয়া গেল এমন সময়ে একজন সর্দ্দার রাণার নিকট করযোড়ে নিবেদন করিলেন, “মহারাজ, আপনি অনেকবার আমার প্রতি সন্তুষ্ট হইয়া বরদান করিতে চাহিয়াছিলেন, আমি এতদিন লই নাই; আজ যদি কৃপা করিয়া কর্ণপাত করেন তবে একটি প্রার্থনা করি।”

 রাণ বলিলেন, “কি প্রার্থনা বলুন, আমি এখনই তাহা পূর্ণ করিতেছি।” সর্দ্দার কহিলেন “আমার সন্তান নাই,