পাতা:মিবার-গৌরব-কথা - হেমলতা দেবী.pdf/৭১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

শক্তসিংহ।

৬৩

তথাপি সকলে নির্ব্বাক, সকলে যেন বজ্রাহত। অগ্রসর হইয়া একটা কথা বলে, এমন শক্তি কাহারও নাই। কিন্তু নিমেষের মধ্যে মহাবেগে ঐ কে দুই হস্ত তুলিয়া “মহারাজ, করেন কি, করেন কি, ক্ষান্ত হউন” বলিয়া ছুটিয়া আসিলেন। সকলে বিস্ময়ে চাহিয়া দেখে, রাজপুরােহিত স্বয়ং মধ্যে পড়িয়া বিবাদভঞ্জনার্থ উভয় ভ্রাতাকে হস্তে ধরিয়া অনুনয় বিনয়, করিয়া তাঁহাদিগকে প্রকৃতিস্থ করিবার চেষ্টা করিতেছেন। কিন্তু হায়! তাঁহার এত অনুনয় বিনয় এত আয়াস সকলই বিফল হইল। কিছুতেই তাঁহাদিগকে শান্ত করিতে পারিলেন না। ব্রাহ্মণ আর কোন উপায় না দেখিয়া তীক্ষ্ণ ছুরিকা আপনার হৃদয়ে বিদ্ধ করিলেন। “সর্ব্বনাশ! সর্ব্বনাশ! ব্রহ্মহত্যা!” বলিয়া সকলে চীৎকার করিয়া উঠিল। ভ্রাতৃদ্বয়ের চরণতলে পড়িয়া পরমমিত্র কুলপুরােহিত প্রাণত্যাগ করিলেন। ভ্রাতৃদয়ের হস্তের শেল ভূমিতে পড়িয়া গেল। যুদ্ধ থামিয়া গেল। এখন কোথায় বা ক্রোধ আর কোথায় বা জিঘাংসা! দুই জনেরই জ্ঞানােদয় হইল। তাই ত, কি সর্ব্বনাশ হইল! লজ্জায় দুঃখে দুইজনে অধােবদন হইলেন। প্রতাপ যথাবিধি পুরোহিতের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া ও শ্রাদ্ধাদি করিলেন