পাতা:মুর্শিদাবাদের ইতিহাস-প্রথম খণ্ড.djvu/৬৬০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

একাদশ অধ্যায়। আল্লাউদ্দৌলা সরফরাজ খাঁ । নবাব সুজাউদ্দীনের পরলোকগমনের অব্যবহিত পরেই সরফরাজ খাঁ পিতৃপরিত্যক্ত মুবাত্রয়ের শাসনকর্তার - . পদে প্রতিষ্ঠিত হইলেন। এই সময়ে তিনি * আপনাকে চতুর্দিকে শত্রুপরিবেষ্টিত বলিয়া মুর্শিদকুলীর ধৰ্ম্মভাবের মনে করিতে লাগিলেন। যদিও মুর্শিদাবাদের "" : সিংহাসনের জন্য তৎকালে অপর কেহ তাহার প্রতিদ্বন্দ্বী ছিল না, তথাপি তিনি সৰ্ব্বদাই ভীত ও চকিত অবস্থায় কাল যাপন করিতেন। তাহার হৃদয়ে এই রূপ ভয়ের সঞ্চার হইয়াছিল যে, পিতার মৃতদেহের সৎকারের সময় তিনি যোগদান করিতে সাহসী হন নাই। তিনি আপনার সুরক্ষিত প্রাসাদ হইতে বহির্গত হইয়া এক পদও অগ্রসর হইতে পারেন নাই। তাহার এই প্রকার সংকীর্ণভাবের জন্ত ক্রমে ক্রমে তাহার সৰ্ব্বনাশের পথ প্রশস্ত হইয়া উঠিল। যাহারা প্রকৃত প্রস্তাবে শক্র হইলেও প্রকাগু ভাবে কিছুই করিতে পারিত না,তাহার তাহার দুৰ্ব্বল হৃদয়ের পরিচয় পাইয়া উৎসাহান্বিত হইয়া সুযোগেরঃ অনুসন্ধান করিতে লাগিল। সুজাউদ্দীনের জীবদ্দশায় অনেকেই সরফরাজের শত্র হইয় উঠে। কেবল মুজার উদার ব্যবহারে ও তাহার অনুগ্রহ স্বরণ করিয়া কেহ তাহার পুত্রের অনিষ্টলাৰে अ