পাতা:মুর্শিদাবাদের ইতিহাস-প্রথম খণ্ড.djvu/৬৮০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

একাদশ অধ্যায় । @b"ふ বাক্যে নবাবকে শাস্ত করিতে যত্নবান হইলেন। তিনি সুস্পষ্ট বাক্যে বলিলেন যে, যদিও আলিবর্দী এত দূর অগ্রসর হইয়াছেন, তথাপি যে মুহূর্তে তিনি তাহার শিবিরে উপস্থিত হইবেন, সেই মুহূর্বেই র্তাহাকে বিহারে প্রত্যাগমন করিতে বাধ্য করিবেন। এক্ষণে হাজী আহম্মদের গমন লইয়া সকলের মধ্যে তর্কবিতর্ক উপস্থিত হইল। কেহ কেহ তাহাকে যাইতে দিতে ইচ্ছা করিলেন না, এবং অনেকে তাহার গমনে বিশেষ রূপ অনিষ্ট্রের আশঙ্কা করিলেন না। অবশেষে মহম্মদ গাওস খী নামক - ক জন পুরাতন কৰ্ম্ম চারী হাজী আহম্মদের গমনের বিশেষ রূপ সমর্থন করিলেন। র্তাহার মতে যদি হাজী আহম্মদকে কারারুদ্ধ করিয়া রাখা হয়, তাহা হইলে আলিবর্দীর সসৈন্যে মুর্শিদাবাদে উপস্থিত হওয়ার ইচ্ছা থাকিলে কোন প্রতিবন্ধক হইবে না, তিনি অবশু আসিবেনই আসিবেন। অন্যথা হাজী আহম্মদ যদি আলিবঙ্গীর সহিত যোগদান করেন, তাহাতে আলিবর্দীর বিশেষ কোন উপকার হইবে না, কারণ হাজী আহম্মদ একাকী, তাহার সহিত সৈন্যসামন্ত কিছুই নাই। নবাব আলিবর্দীর সহিত যুদ্ধ করিতে ইচ্ছা করিলে, হাজী আহম্মদের দ্বারা কোনই ক্ষতি হইবে না। মহম্মদ গাওস ধার বাক্যাবসানে সকলেই তাহার মত সমর্থন করিলেন। তখন হাজী আহম্মদ নবাবের হস্ত হইতে নিস্কৃতি লাভ করিয়া আলিবর্দীর শিবিরাভিমুখে অগ্রসর হইলেন। তিনি গমনকালে বারবার নবাবকে লিথিয়ছিলেন যে, আলিবর্দী কখনও তাহার বিরুদ্ধাচরণ করবেন না, তিনি স্বীয় অসুবিধা ও কষ্ট আবেদন করিবার জন্য নবাবের নিকট অগ্রসর হইতে ইচ্ছা করিয়াছেন, কিন্তু নবাব যদি দুষ্ট লোকের পরামর্শে র্তাহার বিরুদ্ধে যুদ্ধযাত্রা করেন,