পাতা:মেয়েলি ব্রত ও কথা - পরমেশপ্রসন্ন রায়.pdf/১০৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ধনপতি সওদাগর , ১৯১ ভাল, এই জন্যেই তোমাদের ডাকিয়েছি । আজ কায় বছর যাবৎ সওদাগর বাড়ীতে নাই । যে দারুণ রোগ শরীরে নিয়ে তিনি বিদেশ-যাত্ৰা করেছেন, তা তোমাদের মা বলাই ভাল । DBDDD DDBD BBDB BDB BD DBDBD DB BDBB S তিনি মানা শুনলেন না ; বল্লেন, “হাতে একট পয়সা নাই, বাণিজ্যে না বেরুলে ঘরে ব’সে কি খাব” । তারপর এ পৰ্য্যন্ত তার খুবর নাই। ভাবনায় আমার ঘুম হয় না। এদিকে তিনি রাজ্যের দেন রেখে গেছেন । এর মধ্যে যদি একটা ভাল মন্দ খবর এসে পড়ে, তবে ঠিক জেনো, আমি তোমাদের কাছে একটা পয়সারও দায়ী হতে পারবো না । দোকানীরা খাবার দেওয়া বন্ধু কল্পে । তারপর অনেক দিন চ’লে গেল। কিন্তু গিল্লির ভাবনা দূর হলো না । সতীনের ছেলে মেয়েরা বাড়ীতে আধা পেটা খেয়ে এখনও হেসে খেলে বেড়াছে ! গিন্নি আর কত সইবেন ? এবার তিনি নিজেই গুরুজ ক'রে ওদের সঙ্গে নিজের ছেলে মেয়েদের মাঠে পাঠিয়ে । দিলেন । গিন্নি সেদিন ব্যস্ত হয়ে পথের পানে চেয়ে ব’লে আছেন, এমনি সময় ছেলেরা বাড়ী ফিরে এলে । ছোট ছেলে ও মেয়ে দৌড়ে এসে বলে, মা, দাদা ওঁ দিদির সঙ্গে গিয়ে আজ যা খেয়েছি তা আর কি বলবো। তার কাছে সন্দেশ রসগোলা কোথা লাগে ! "জঙ্গলের ভিতর গাছে এত সুন্দর ও মিষ্টি পাকা ফল ঝুলে রয়েচে তা দেখলে চো’ক জুড়ায়, আর একবার মুখে দিলে আর কিছুই খেতে সখি হবে না। আমরা ফলের নাক্ষানি न, cदोष इब *चकूड़ कण' एव । ७ई ६मश्र, अफ्नै क्ग ब्रूचिश्म