পাতা:মেয়েলি ব্রত ও কথা - পরমেশপ্রসন্ন রায়.pdf/৫৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আমিষ-বিভ্ৰাট • ১৩ মুলা-ষষ্ঠীব্ৰত কথা । BBD S SuBSBB DDDBS SSS DDDD sDJDS B SKK এক দিন কোখেকে এক হাস নিয়ে এসে ব্ৰাহ্মণীকে বলেন, আমার মাংস খেতে ইচ্ছে হয়েছে, আমায় রোধে দাও । আর তুমি না পার, বউমাকে বল, সেই রোধে দিবে। তার বাপের ৰাঁড় লোক, কত দেখেছে শুনেছে ও ভাল রান্না জানে । বউ মাংস রোধে বাড়ীর দাসীকে বলে, বি, ঠাকুর এত সাধা ক’রে খাবেন, তুই একটু চেকে দেখ, কেমন রান্না হয়েছে। আমার সকল সময় নুন আন্দাজি ঠিক হয় না । দাসী কোন দিন মাংস খায়নি ; তার বড় লোভ হলো । সে খানিকট খেয়ে বলে, যে গরম দিয়েছ কিছু স্বাদ পেলুম না ; আর একটু দাও দেখি। আবার মাংস চেকে বলে, ই হয়েছে, তবু যেন কেমন একটু লাগছে ; আবার দাও দেখি । বেশী করে । দাও, ঠাওরাতে পাচ্ছিনে । লোভে বির নোলা সগবাগিয়ে উঠেছে, এমি ক’রে চাকতে চাকতে হঁাড়ির মাংস ফুরিয়ে গেল । বউ বলে, ঝি তুই কি কলি, সব মাংস খেয়ে ফেলি! কি হবে! তুই শীগগির দৌড়ে যা, আর একটা হাঁস যদি পাল তবে তোকে পুরস্কার দেবো, আমি দাম দিচ্ছি। ঝি ভয়ে ও পুরস্কারের লোতে ইস না পেয়ে, অবশেষে পাড়ায় গেরুস্তদের একটা আধমরা রোগী বাছুর ছিল, তাই লুকিয়ে কেটে বউকে মাংস এন দিলে। মাংস কিছুতেই সিদ্ধ হয় না। বউ বলে, বি, কি মাংস আনলি, ” সেদ্ধ হয় না কেন ? তোয় বুকের পাট তে কম নয়g ব্ধি । থাতমত্ত খেলায় বলে, সে কি কথা গো, হাসের মাংস চিন্তে পাৱ ।