পাতা:ম্যালেরিয়া - দয়ালকৃষ্ণ ঘোষ.pdf/৯৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

ম্যালেরিয়া।

৯১

দশ হইতে বিশ গ্রেণ মাত্রায় দিবসে তিন কিম্বা চারি বার সেবনে আশাতীত ফল প্রাপ্ত হওয়া যায়। কেবল মাত্র যকৃত প্রদাহে নিসাদল এক প্রকার বিশেষেষধ। (Specific) এমন কি যকৃতে পুযাধান (Suppuration) আরম্ভ হইলেও ইহা সেবনে প্রদাহ প্রশমিত হয়। ইহা যকৃতের প্রদাহ নাশক এবং প্রদাহোৎপাদিত পদার্থ সমূহের উপরও ইহার কার্যকারিতার বিশেষ পরিচয় পাওয়া যায়। কেবল মাত্র পরিবর্তক (alterative) বলিলে কেবল ইহার সাধারণ গুণ ব্যক্ত করা হয় বিশেষ গুণ তদ্বারা প্রকাশিত হয় না এজন্য প্রদাহনাশক বলিয়া ইহা এখানে অভিহিত হইল। যখন দেহস্থ অন্য কোন যন্ত্র পীড়িত না হইয়া কেবল মাত্র যকৃতের প্রদাহ বর্ত্তমনি থাকে, তখনই ইহার ফলেপকারিতার বিশেষ পরিচয় প্রাপ্ত হওয়া যায়। যকৃতের প্রদাহে ইহা এক প্রকার অব্যর্থ ঔষধ বলিলেও বড় অত্যুক্তি হয় না। ইহার আর একটী গুণ এই যে দীর্ঘকাল সেবনে অন্যান্য পরিবর্তকের ন্যায় ইহা রক্তকে অধিকতর তরল ও দেহকে দূষিত করে না। প্রাচীন প্রদাহে ও বিবৃদ্ধতায়ও ইহা ব্যবহার্য। মাত্রা ৫ হইতে ২০ গ্রেণ।

 অন্যান্য ঔষধ(১) য়্যালোজ, এবং জেন্সিয়ানের সহিত অল্প মাত্রায় ইপিকাকুয়ানা। (২) ডাইলিউট, নাইট্টহাইডোরিক এসিডের সহিত লাইকর ট্যারেক্সকম ও কলম্ব ফন্ট। (৩) সোডওয়াটার এবং এসিভ টারটারেট,