পাতা:যশোহর-খুল্‌নার ইতিহাস প্রথম খণ্ড.djvu/২৩৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

չԳԵ যশোহর-খুলনার ইতিহাস । করিয়া “মহাযান দেব” উপাধি লাভ করেন। ৬২৯ হইতে ৬৪৫ খৃষ্টাব্দ পর্য্যন্ত ১৬ বৎসর কাল ইউয়ান চোয়াং ভারতের প্রায় অধিকাংশ স্থান ভ্রমণ করিয়া এক বিস্তৃত বিবরণী লিপিবদ্ধ করেন। উহার মধ্যে র্তাহার সমতটের বিবরণী হইতে আমরা যশোহর-খুলনার ইতিহাস সম্বন্ধে অনেক কথা জানিতে পারি। গুপ্ত রাজগণ হিন্দু তান্ত্রিক এবং পরম বৈষ্ণব ছিলেন। স্কন্ধ গুপ্তের সময়েই বৌদ্ধ ধৰ্ম্মের প্রতি র্তাহার মতি আকৃষ্ট হয়। বালাদিত্য বৌদ্ধ ছিলেন। সমুদ্র গুপ্ত বা দ্বিতীয় চন্দ্রগুপ্তের সময়ে বিষ্ণুমূৰ্ত্তির পূজাপদ্ধতি বিশেষ ভাবে প্রচলিত হয়। আমাদের দেশে যেখানে যে সকল সুন্দর চতুভূজ বামুদেব প্রভৃতি বিষ্ণুমূৰ্ত্তি দৃষ্ট হয়, তাহার কতক এই যুগে এবং কতক পরবর্তী সেন রাজত্ব কালে প্রতিষ্ঠিত হয়। হিন্দু ব্রাহ্মণ এবং বৌদ্ধ শ্রমণে যে চির বিবাদ চলিয়া আসিতেছিল, গুপ্তযুগে হিন্দুরা কতক বৌদ্ধভাবাপন্ন এবং বৌদ্ধের হিন্দুভাবাপন্ন হওয়ায় তাহার মীমাংসা হইয়া আসিতেছিল। বুদ্ধদেবের মৃত্যুর পর তাহার ধৰ্ম্মের বহু মত-বিপৰ্য্যয় হয়। খৃষ্টীয় প্রথম শতাব্দীতে কুষণ সম্রাট কণিষ্কের রাজত্বকালে বৌদ্ধদিগের এক মহাসম্মিলনে বৌদ্ধধৰ্ম্ম দুইটি প্রধান সম্প্রদায়ে বিভক্ত হয়। নাগাৰ্জুন নামক প্রসিদ্ধ বৌদ্ধাচাৰ্য্য কতকগুলি হিন্দু দেবদেবী স্বীকার করিয়া যে উদার বৌদ্ধ মতের প্রবর্তন করেন, তাহাই হইল মহাযান। আর প্রাচীন অর্থাৎ বুদ্ধ দেবের প্রচারিত মতে যাহারা বিশ্বাসবান রহিলেন, তাহারাই হীনযান সম্প্রদায়ভুক্ত হইলেন। ইহাকে প্রাচীন বা স্থবির মতও বলে। কালে ইহার সহিত মহাযান মতের কতকটা সংমিশ্রণে স্থবির মহাযান মত হইয়াছিল। কণিষ্ক স্বয়ং মহাযানমতাবলম্বী ছিলেন এবং তখন হইতে মহাযানেরই আধিপত্য বিস্তৃত হয়। ক্রমে বসুবন্ধু নামক বৌদ্ধমুনি পাতঞ্জল দর্শনের যোগাচার ও মন্ত্রাদি মহাযানের অন্তভুক্ত করিয়া দেন। তখন হইতে নাগাৰ্জুনের মতের নাম হইল মাধ্যমিক ও বস্তুবন্ধুর প্রবর্তিত নব মহাযান মত যোগাচার নামে অভিহিত হইল। এই ভাবে হিন্দু তান্ত্রিকতা যত বৌদ্ধধৰ্ম্মে প্রবিষ্ট হইতে লাগিল, হিন্দু দেবদেবী যত বৌদ্ধমূৰ্ত্তি পরিগ্রহ করিতে লাগিলেন, ততই হিন্দু বৌদ্ধ ধৰ্ম্মে একটা মিলন হইয়া গেল। বুদ্ধদেব হিন্দুদিগের দশঅবতারের অন্তর্গত হইয়া পড়িলেন। পরবর্তী কালে পুরুষোত্তমে বুদ্ধ, সংস্ক ও ধৰ্ম্ম-বৌদ্ধদিগের এই ত্রিমূৰ্ত্তি, হিন্দু দেবদেবীর মূৰ্ত্তি ধারণ করিন্থ