পাতা:যশোহর-খুল্‌নার ইতিহাস প্রথম খণ্ড.djvu/৩০৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

আভিজাত্য । ఫిలిసి করিয়া দিয়াছিলেন, এবং “গৰ্গৰ্ষবনান্বয় প্রলয়কালরুদ্র” উপাধিতে • বিশেষিত হইয়াছিলেন। বঙ্গ বিজয়ের ৬০ বৎসর পরে যখন মীনহাজ গৌড়ে আসেন, তখনও তিনি পূৰ্ব্ববঙ্গে স্বাধীন সেন রাজত্ব দেখিয়া গিয়াছিলেন। বিশ্বরূপের পর দনুজ মাধব এবং পরে তাহদের উত্তরাধিকারিগণ চতুর্দশ শতাব্দীর মধ্য পৰ্য্যন্ত সবলে পূৰ্ব্ববঙ্গে শাসন দণ্ড পরিচালনা করিতেছিলেন। এ সময়ে সুন্দরবন অঞ্চলে জলপ্লাবন ও নিমজ্জন হেতু বাগড়ীর দক্ষিণাংশের অবস্থা অতি শোচনীয় হইয়া পড়িয়াছিল। যশোহর-খুলনার উত্তরাংশে যে সকল স্থান অপেক্ষাকৃত ভাল অবস্থায় ছিল, তথায় স্থানীয় মাওলিক জমিদারেরা লাঠির জোরে রাজ্যের গওঁ বিভাগ সরিয়া লইয়াছিলেন ; এবং দরিদ্র প্রজা সস্তুষ্টিসাধন দ্বারা তাহদের হস্তে নিস্তার পাইলেও দম্য দুৰ্ব্বত্ত এবং হিংস্ৰ জন্তু দ্বারা বিশেষ বিড়ম্বিত হইত। শরীরের বল ও বীরত্ব তাহাদের একমাত্র অবলম্বন এবং সামাজিক বাদ বিচার একমাত্র ব্যবসায় ছিল । একাদশ পরিচ্ছেদ—আভিজাত্য । বৌদ্ধযুগে ব্রাহ্মণাচার ও বৈদিকক্রিয়৷ কাণ্ড এক প্রকার বিলুপ্ত হইয়াছিল বলির মহারাজ আদিশূর কান্তকুজ হইতে পঞ্চ ব্রাহ্মণ আনয়ন করেন। র্তাহীদের দ্বারা চিরন্তন ব্রাহ্মণ্য রক্ষিত হইবে, এইরূপ বিশ্বাস ছিল। কিন্তু ক্রমে দেশের প্রকৃতিতে এবংসংস্পশ দোষে তৎপক্ষে নানা ব্যাঘাত জন্মে। ইহাই দেখিয়া গৌড়মগুলে পুনরায় বিদ্যা ব্রাহ্মণ্য লোপ না পায়, এজন্য মহারাজ বল্লালসেন কৌলীন্ত সংস্থাপন ও কুলরক্ষার বিধি প্রণয়ন করেন। কালসহকারে পরীক্ষিত হইয় তাহার বংশধরগণের সময়ে সেই সকল বিধি সংস্কৃত ও পরিবদ্ধিত হয় এবং বঙ্গব্যাপী এক প্রবল আভিজাত্যের হুষ্টি করে। সেন-রাজত্বের ইহাই সৰ্ব্বপ্রধান এবং স্থায়ী কীৰ্ত্তি। হিন্দু রাজত্ব গিয়াছে, কিন্তু আভিজাত্যের প্রতিপত্তি যায় নাই। এখনও ইহার ফলে, দেশীয় রাজা না থাকিলেও, সমাজের শাসন চলিতেছে ; লোক রাজনীতি ভুলিয়াছে, কিন্তু

  • “শশাল পৃথিবীমিমাং প্রথিত বীরবর্গগ্রণীঃ। স গর্গন্তবনাশ্বল্প প্ৰলয়কাল রূত্রে নৃপঃ ” মদনপাড়ে প্রাপ্ত লিখরূপেঃ তাম্র শাসণ, J. A. S. B. 1895, pp, g—is.