পাতা:যশোহর-খুল্‌নার ইতিহাস প্রথম খণ্ড.djvu/৪৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

Ꭹbr যশোহর-খুলনার ইতিহাস। যাইতে যাইতে বচনদীর সহিত ইহার সন্মিলন ইয়াছে। ভৈরব নানাস্থানে । নানা নদীর সহিত আত্মাহুতি দিতে দিতে, নিজে সঙ্কুচিত হইয়া গিয়াছে। সুতরাং ভৈরবের আর সেদিন নাই । মালদহের মধা দিয়া আসিয়৷ শ্ৰুতকীৰ্ত্তি মহানদ যেখানে পদ্মায় পড়িয়াছে, তাহারই অপর পারে যেন সেই নদই ভৈরব নাম ধারণপূর্বক বাহির হইয়াছে। অনেক দূর আসিয়া ইহা পদ্মার অন্য একটি দক্ষিণবাহিনী শাখা জলঙ্গীর সহিত মিশিয়াছে। যুক্তপ্রবাঙ্গ হইতে মুক্ত হইয়। ভৈরব পুনরায় মেহেরপুরের পশ্চিমদিয়া বর্তমান জয়রামপুর রেলওয়ে ষ্ট্রেশনের পশ্চিমে পদ্মার আর একটি শাখা মাথাভাঙ্গার সহিত মিশিয়াছে। বৰ্ত্তমান দর্শন রেলওয়ে ষ্টেশনের পশ্চিম দক্ষিণ কোণ হইতে একটি প্রকাণ্ড বৃত্তাকার বাকে এই যুক্তপ্রবাহ ঘুরিয়াছিল। ঐ বাকের দক্ষিণ-পূৰ্ব্ব কোণ হইতে ভৈরব মাথাভাঙ্গ হইতে বিচুত হইয়া যশোহরে প্রবেশ করিয়াছে। ইহা ক্রমে কোটচাদপুর পর্যন্ত পূৰ্ব্বমুখে আসিয়া পরে দক্ষিণমুখী হইয়াছে। ৫৭ মাইল আসিয়া চৌগাছার উত্তরে তাহিরপুর নামক স্থানে ভৈরব দক্ষিণদিকে কপোতাক্ষ শাথ ত্যাগ করিয়া,নিজে পূৰ্ব্বদিকে প্রবাহিত হইয়াছে। এইস্থান হইতে উভয়নদী অগ্রসর হইতে হইতে ক্রমশঃ প্রবল আকার ধারণ করিয়াছে। যশোহর-খুলনার আর্যাসভাত এই দুই নদী পথে প্রবাহিত হইয়া উভয়ের কূলে কুলে সমৃদ্ধ ও জ্ঞানালোক দীপ্ত-পল্লীর স্বষ্টি করিয়াছে। ভৈরব ক্রমান্বয়ে বামে দক্ষিণে বারবাজার, মুড়লী কসবা ( বর্তমান যশোহর), বসুন্দিয়, সেখহাটী ( জগন্নাথপুর ), আলিনগর ( নওয়াপাড়া ), পয়গ্রাম (কসবা), ফুলতলা, দৌলতপুর, সেনহাট, খুলন, সেনেরবাজার, আলাইপুর ( চাঁদপুর), ফকিরহাট, পাণিঘাট, বাগেরহাট ( খলিফাতাবাদ) ও কচুয়া প্রভৃতি প্রসিদ্ধস্থান রাখিয়া বলেশ্বরে মিশিয়াছে । এদিকে কপোতাক্ষ বামে দক্ষিণে গুয়াতলী, চৌগাছা, গঙ্গানন্দপুর বোধখান, লাউজানি (ব্রাহ্মণনগর) ত্রিমোহিনী, সাগরদাড়ি, কুমির, তাল, কপিলমুনি, রাডুলি কাটিপাড়া, চাখালি, বড়দল আমাদি প্রভৃতি প্রসিদ্ধ স্থানের উদ্ভবসাধন করিয়া সুন্দর বনের মধ্যে খোলপেটুয়ার সহিত মিশিয়াছে। এই সঙ্গমস্থানেই বর্তমান কপোতাক্ষ ফরেষ্ট ষ্টেশন। তথা হইতে যুক্তনদী বিশাল বিস্তার লাভ করিয়া আড়পাঙ্গাসিয়া নামে মালঞ্চ মোহানায় বঙ্গোপসাগরে পড়িয়াছে।