পাতা:রঙ্গমল্লী.djvu/১৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রঙ্গমল্পী পুরদ্বারে—ইজকীলে স্পৰ্দ্ধিত লিচ্ছবি দেছে হান ; তুমি সাজিয়াছ যুদ্ধে—জনরবে শুনি’ এ বারত শক্র হবে হতবুদ্ধি, মিত্রেরা লভিবে নব বল। কর্ণপাত কর কাকুতিতে হে প্রবীণ ! বীরাগ্রণী । থেক না বিরাগ-ভরে দূরে সরি’ পরের মতন, তুমি এক শক্তি ধর এ শত্রু দমনে । ওগো বীর, রক্ষা কর অগ্নি সাগ্নিকের, রক্ষা কর বাস্তুভিটা । লও এ যুদ্ধের ভার, হও তুমি নেতা আমাদের ; পুরঞ্জয় ! সদাশয় পুরঞ্জয় ! রাখ–কথা রাখ। নাগরিকগণ কথা রাখ পুরঞ্জয় ! রাখ আজ বৈশালীর মান। ( ধীরে ধীরে গৃহাভ্যস্তর হইতে গৃহসন্মুখস্থ সোপানশ্রেণীতে পুরঞ্জয়ের অবতরণ ) পুরঞ্জয় কেন এই গণ্ডগোল ? আমারে কিসের প্রয়োজন ? মাগরিকগণ রক্ষা কর আমাসবে লিচ্ছবির আক্রমণে, বীর । পুরঞ্জয় তোমরা বৈশালীবাসী,—তোমাদের এ মহানগরী এই বাহু পঞ্চযুদ্ধে রক্ষা করিয়াছে শক্ৰ হ’তে ;– -বারম্বার পঞ্চযুদ্ধে তোমা সবে করেছি উদ্ধার ; এই তার পুরস্কার । আমারে রেখেছ অনাদরে, অখখ-শিকড়ে দীর্ণ পাষাণের জীর্ণ এই স্তপে,— অভাবের রাহুগ্ৰাসে ঘেরা ; পড়ে আছি এক প্রাস্তে