পাতা:রঙ্গমল্লী.djvu/৩০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আয়ুষ্মতী ২১ বৃদ্ধের এ রক্তধার'—পাংশু ব’লে গ্রাহ কি হবে ন ? কিম্ব চাহ তপ্ত রক্তধারা—রক্তজবা সম লাল ? বল, দেবী দয়া করি, উত্তরের আছি প্রতীক্ষায় । ( মন্দিরের দ্বার পূর্ববৎ রুদ্ধ রহিল ) পুরঞ্জয় নিৰ্ব্বাক ! নিৰ্ব্বাক দেবী ! আয়ুষ্মতী আমার বক্তব্য আছে পিতা । পুরঞ্জয় বল বতসে ! আয়ুষ্মতী প্রথম শুনিম্ন যবে দারুণ ওকথা,— শুনিমু তোমারি মুখে, নারিমু বুঝিন্তে যেন ঠিক, বজ্ৰাহত রহিন্থ দাড়ায়ে । ক্রমে বুঝিলাম সব ধীরে ধীরে সব কথা পরিষ্কার হয়ে যেন এল ; বুঝিলাম, শক্ৰ হ’তে রক্ষা তুমি করেছ স্বদেশ,— বলি দিতে হ’বে তাই একমাত্র সন্তান তোমারি । ভাবিলাম মনে মনে, “মরিব কেমন ক’রে আমি ? পিতা মোর কেমনে বা কাটিবেন মোরে নিজ হাতে ? যেই হাতে একদিন শূন্তে মোবে করিয়া উৎক্ষেপ ধরেছেন সকৌতুকে খেলাচ্ছলে অবলীলাক্রমে । আমি, হায়, একমাত্র সস্তান তাহার ; ভাই নাই, নাই বোন ; শিশুকালে মাতৃহীন, তাহারি যতনে