পাতা:রজনী - বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৬৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শচীন্দ্র বক্তা । ৬৩ $िक, कषनहे मन्भू{ रुहेष्ठ भावॆ ना? এবং এ সকল চিত্রও সম্পূর্ণ নছে। ডেসডিমনার চিত্র দেখাইর কছিলেন, আপনি, এই চিত্রে ধৈর্য্য, মাধুর্য্য, নম্রতা পাইতেছেন,কিস্ত ধৈর্ঘ্যের সহিত সে সাহস কই ? নম্রতার সঙ্গে সে সতীত্বের অহঙ্কার কই ? জুলিয়েটের মূৰ্ত্তি দেখাইয়া কহিলেন, এ নৃত্যুবতীর মূৰ্ত্তি বটে, কিন্তু ইহাতে জুলিয়েটের নবযৌবনের অদমনীয় চাঞ্চলু কই ? অমরনাথ এইরূপে কত বলিতে লাগিলেন। সক্ষপূিৰ্বের নায়িকাগণ হইতে শকুন্তলা, সীতা, কাদম্বী,বাধাঁদড়কেন্ত্ৰিণী, সত্যভামা প্রভূতি আসিয়া পড়িল । অমরনাথ একে এে তাহাদিগের চরিত্রের বিশ্লেষ করিলেন। প্রাচীন সাহিত্যের কথায় ক্রমে প্রাচীন ইতিহাসের কথা আসিয়া পড়িল, তংগ্রসঙ্গে তামিতস, প্লটার্ক, খুকদিদিস প্রভৃতির অপূৰ্ব্ব সমালেচার অবতারণ হইল। প্রাচীন ইতিবৃত্ত-লেখকদিগের মত লইরা অমরনাথ কোমৃত্বের ত্রৈকালিক উন্নতিসম্বন্ধীয় মতের সমর্থন করিলেন। কোম্ৎ হইতে র্তাহার সমালোচক মিল ও হকসণীর কথা আসিল । হকস্থলী হইতে ওয়েন, ও ভারুইন, ডারুইন হইতে বুকনেয়র সোপেনহয়র প্রভৃতির সমালোচনা আসিল , অমরনাথ অপূৰ্ব্বপাণ্ডিত্যস্রোতঃ আমার কর্ণরন্ধে প্রেরণ ਵਿਲ লাগিলেন। আমি মুগ্ধ হইয়া আসল কথা ভুলির গেলাম । বেলা গেল দেখিয়া, অমরনাথ বলিলেন, “ মহাশয়কে আর বিরক্ত করিব না। যে জন্য আসিয়াছিলাম, তাছা এখনও বলা হয় নাই। রাজচন্দ্র দাস, যে আপনাদিগকে ফুল বেচিত, ভাদুড়ঙ্কট কন্য। আছে ?” আমি বলিলাম, “ আছে বোধ হয় ।” जगद्रनाथ श्रेष१ शनिग्रा बलिट्जन, “ cदाक्ष श्य नग्न, cन• আছে। অগ্নি জুহাকে বিবাহ করিব স্থিয় করিয়াছি।” ' .