পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অচলিত) দ্বিতীয় খণ্ড.pdf/১৩৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ᎼᎼbr রবীন্দ্র-রচনাবলী কি সাধারণ তপস্যা? যে তোমার অধীন নহে, তোমার নিজেকে তাহার অধীন করা ; যে সম্পূর্ণ স্বতন্ত্র, তোমার নিজেকে তাহার কাছে পরতন্ত্র করা; যাহার সকল বিষয়ে স্বাধীন ইচ্ছা আছে, তোমার নিজের ইচ্ছাকে তাহার আজ্ঞাকারী করা ; সে কি কঠোর সাধন ! যখন রাধিক কহিলেন, “পিরীতি পিরীতি, কি রীতি মূৰ্বতি হৃদয়ে লাগল সে, পরাণ ছাড়িলে পিরীতি না ছাড়ে, পিরীতি গড়ল কে ? পিরীতি বলিয়া এ তিন আখর না জানি আছিল কোথা ! পিরীতি কণ্টক হিয়ায় ফুটল, পরাণ পুতলী যথা । পিরীতি পিরীতি পিরীতি অনল দ্বিগুণ জলিয়া গেল, বিষম অনল নিবাইলে নহে, হিয়ায় রহল শেল !” তখন চণ্ডিদাস কহিলেন, "চণ্ডিদাস বাণী শুন বিনোদিনি, পিরীতি না কহে কথা, পিরীতি লাগিয়ে পরাণ ছাড়িলে পিরীতি মিলয়ে তথা !” (বিদ্যাপতির ন্যায় কবিগণ যাহারা মুখের জন্য প্রেম চান, তাহার প্রেমের জন্য এতটা কষ্ট সহ করিতে অক্ষম । কিন্তু চণ্ডিদাস জগতের চেয়ে প্রেমকে অধিক দেখেন, “পিরীতি বলিয়া এ তিন আখর, এ তিন ভুবন সার।” কিন্তু ইহা বলিয়াও র্তাহার তৃপ্তি হইল না, দ্বিতীয় ছত্ৰে কহিলেন, “এই মোর মনে হয় রাতি দিনে ইহা বই নাহি আর ”