পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অচলিত) দ্বিতীয় খণ্ড.pdf/৫৩৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৫ ১৬ রবীন্দ্র-রচনাবলী চেষ্টা ব্যর্থ হইল, কেহই সফলকাম হইল না । যখন এই সন্মানের জন্য শেষ মsে হতাশ হইয়া চেষ্টা ত্যাগ করিতে উষ্ঠত হইয়াছে, এমন সময়ে একটি স্ত্রীলোক উীgে: মধ্য দিয়া ঠেলিয়া পথ করিয়া ভিতরে উপস্থিত হইল এবং তাহার সঙ্গে একটি ছোটে বালিকা আসিল । অবশু তাহারাই রডপিস্ এবং তাহার বিমাতা। \) রডপিস বলিয়া উঠিল, “কেন, মা, ঐ তো আমার হারানো জুতা !” সভাসদের দল একেবারে নিঃশব্দ ; কেন না তাহারা ভাবিতে লাগিল, ইহার পরে না জানি কী ঘটে । ইহার মধ্যে অসামান্য কিছু আছে, একথা একটুও না ভাবিয়া ঐ চারুমুখী কন্যাটি নিতান্ত সহজে জুতার মধ্যে পা গলাইয়া দিল এবং ইহার সঙ্গে জুড়ি মেলে এমন একটি পাটি তাহার জেব হইতে বাহির করিল। যখন রডপিসের হাত ধরিয়া রাজা বলিলেন, “ফেরেয়োর বাক্য কখনো ব্যর্থ হইতে পারে না, তখন অন্য সুন্দরী কন্যাদের মধ্যে একটি ক্রুদ্ধ গুঞ্জনধ্বনি ফিরিতে লাগিল। যথাসময়ে ইহাকেই রাজা পত্নীরূপে গ্রহণ করিলেন । গল্প চলিত আছে যে, রডপিস মাধুৰ্য্য ও সাধবীতার জন্য র্তাহার স্বামীর এত একান্ত প্রিয় হইয়াছিলেন যে, তৃতীয় পিরামিড নামে বিদিত পিরামিডটি একদা রডপিসের সমাধিরূপে ব্যবহৃত হইবে বলিয়া, মহিষীর জীবিতকালেই রাজা তাহ নিৰ্ম্মাণ করাইয়াছিলেন। 8 আফ্রিকাতে এবং দক্ষিণ ও পশ্চিম এশিয়ার কোনো কোনো অংশে সিংহ পাওয়া যায় । পুরুষ সিংহ লাঙ্গুলের তিন ফুট সমেত, প্রায় ১০ ফুট হয় ; সিংহী তাহার চেয়ে প্রায় এক ফুট ছোটো হয়। সিংহ বৃক্ষারোহণ করিতে পারে না, তাহারা বালুময় ও শিলাময় স্থানে এবং অনেক সময়ে নদী ও ঝরণার নিকটবৰ্ত্তী গুল্মাবৃত ঝোপঝাপের মধ্যে বাস করে এবং সেই স্থানে শিকারের অপেক্ষায় ওখ পাতিয়া বসিয়া থাকে। রাত্রেই তাহাদের সচেষ্টতা সৰ্ব্বাপেক্ষা বাড়িয়া ওঠে, যদিও দিনেও অনেক সময়ে তাহারা দৃষ্টিগোচর হয় । সিংহের সাহস ও তাহার গর্জনের প্রচণ্ডতাসম্বন্ধে বহুল পরিমাণে মতভেদ আছে ; ঐ দুই বিষয়েই যথেষ্ট অত্যুক্তি হইয়াছে ; কিন্তু ক্ষুধার্তা বা উত্তেজিত সিংহ অতি ভয়ানক, বিশেষতঃ রাত্রিকালে ; মার্জারের ন্যায় গোপনে ও অতর্কিতভাবে শিকারের উপর লাফাইয় পড়িবার অভ্যাসের গুণে সিংহ অনেক সময়ে