পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অচলিত) দ্বিতীয় খণ্ড.pdf/৫৭৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


& 48 রবীন্দ্র-রচনাবলী & X চীনের অবস্থা উত্তরোত্তর অধিকতর মন্দ হইবার দিকে চলিয়াছে। বর্তমান মুহূৰ্ত্তে গবৰ্ণমেণ্টের আটটি স্বতন্ত্র সৈন্যদল ভিন্ন ভিন্ন ভূভাগে যুদ্ধক্ষেত্রে কাজ করিতেছে, এবং তাহদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে দক্ষিণদেশী সৈন্যদল লাগিয়া আছে। দশটি প্রদেশকে অল্পাধিক পরিমাণে দসু্যদলের হাতে ছাড়িয়া দেওয়া হইয়াছে, তাহারা প্রাদেশিক কর্তৃপক্ষের নিকট হইতে কোনো বাধা ন পাইয়া লুটিতেছে, খুন করিতেছে এবং মানুষ ধরিয়া লইয়া যাইতেছে । જે ૨ স্থানীয় শৃঙ্খলা এবং নিরাপত্তির জন্য, যে প্রাদেশিক সৈন্যদলের নিযুক্ত থাকা উচিত, তাহারা রাষ্ট্রীয় সংগ্রামে চলিয়া গিয়াছে, এবং যথনি তাহারা স্বস্থান ছাড়িয়া যায়, তখনি বড়ো বড়ো ভূভাগ চোর-ডাকাতের হাতে গিয়া পড়ে। যেখানে সৈন্সের যুদ্ধ করিতেছে বলিয়া অনুমান করা হয়, সেখানে লোকেরা যেরূপ উৎপীড়িত হইতেছে, তাহা বাক্যের অতীত। গ্রামের লোকেদের ধন লুষ্ঠিত, তাহাদের গৃহ ভস্মীভূত এবং তাহার। নিহত হইতেছে। সমস্ত সহর ব্যাপিয়া লুট চলিতেছে, স্ত্রীলোক ও শিশুরা সৈনিকদের উপদ্রব হইতে রক্ষা পাইবার জন্য পৰ্ব্বতে ও দুর্গম স্থানে হাজারে হাজারে আশ্রয় লইতেছে। সৈন্যেরা নূ্যনতম পরিমাণে লড়াই ও প্রভূততম পরিমাণে লুট করিবার জন্য বাহির হইয়াছে । ○○ তিন জন কয়েদীকে তাহাদের নিজ নিজ কুঠরি হইতে অসতর্কতাবশত পালাইয়া যাইতে দিয়াছে বলিয়া সেন্টাল জেলের একজন সর্দার ও চৌকিদারের নামে যে অভিযোগ আসিয়াছিল, আলিপুরের ডেপুটি ম্যাজিষ্ট্রেট তাহার বিচার শেষ করিয়াছেন। একটি দড়িতে ভাঙা কাচ আঠা দিয়া জুড়িয় তাহাদের কুঠরির লোহার গরাদে কাটিয়া এই তিন জন কয়েদী অত্যন্ত চতুরতার সহিত পালাইতে পারিয়াছে। তাহার পরে যখন চৌকিদার দূরে গেল, তখন তাহার দৃষ্ট এড়াইয়া ইহারা ইলেক্‌টিক তার ধরিয়া নীচে নামিয়া এবং সীমানার প্রাচীরের উপরে চড়িয়া পালাইয়া গেল। জেলের স্বপারিন্টেণ্ডেণ্ট প্রকাশ করেন যে, অভিযুক্তেরা সে সময়ে শাসন-লাঘবযোগ্য অবস্থায় কাজ করিতেছিল, যে হেতু কৰ্ম্মচারীদের মধ্যে ইনফ্লুয়েঞ্জা সংক্রামক হওয়াতে জেলব্যবস্থা বিশৃঙ্খলতায় উপনীত হইয়াছিল।