পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অচলিত) প্রথম খণ্ড.pdf/২৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কবি-কাহিনী প্রকৃতি আছিল তার সঙ্গিনীর মত । নিজের মনের কথা যত কিছু ছিল কহিত প্রকৃতিদেবী তার কানে কানে, প্রভাতের সমীরণ ৰখা চুপিচুপি কহে কুস্কমের কানে মরমবারত। নদীর মনের গান বালক যেমন এমন কাহারে কাছে গাইত না জায় । তার কাছে সমীরণ যেমন বহিত এমন কাহারো কাছে বহিত না আর । যখনি রজনীমুখ উজলিত শশী, সুপ্ত বালিকার মত যখন বহুধা মুখের স্বপন দেখি হাসিত নীরবে, বসিয়া তটিনীতীরে দেখিত সে কবি— সহসা সমীরণের পাইয়া পরশ দুয়েকটি ঢেউ কৰু জাগিয়া উঠিছে । ভাবিত নদীর পানে চাহিয়া চাহিয়া, নিশাই কবিতা আর দিবাই বিজ্ঞান । দিবসের আলোকে সকলি অনাবৃত, সকলি রয়েছে খোলা চখের সমুখে— ফুলের প্রত্যেক কাটা পাইবে দেখিতে । দিবালোকে চাও যদি বনভূমি-পানে, কাটা খোচা কর্দমাক্ত বীভৎস জঙ্গল তোমার চখের পরে হবে প্রকাশিত ; দিবালোকে মনে হয় সমস্ত জগৎ নিয়মের বক্সচক্রে ঘুরিছে ঘৰ্থরি। কিন্তু কবি নিশাদেবী কি মোহন-মন্ত্র