পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অচলিত) প্রথম খণ্ড.pdf/৪৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কবি-কাহিনী শুধু সে কবির কোলে ঘুষাতে বাসিত ভাল, কবি তার চুল লয়ে করিত কি খেলা । শুধু সে কবিরে বালা শুনাতে বাসিত ভাল কত কি – কত কি কথা অর্থ নাই যায়, কিন্তু সে কথায় কবি কত যে পাইত অর্থ গভীর সে অর্থ নাই কত কবিতায়— সেই অর্থহীন কথা, হৃদয়ের ভাব যত প্রকাশ করিতে পারে এমন কিছু না । একদিন বালিকারে কবি সে কহিল গিয়া— "নলিনি। চলিচু আমি ভ্ৰমিতে পৃথিবী ! আর একবার বালা কাশ্মীরের বনে বনে ঘাই গো শুনিতে আমি পাখীর কবিতা ! রুসিয়ার হিমক্ষেত্রে আফ্রিকার মরুভূমে আর একবার আমি করি গে ভ্রমণ ! এইখানে থাক তুমি, ফিরিয়া আসিয়া পুন: ওই মধুমুখখানি করিব চুম্বন।” এতেক কহিয়া কবি নীরবে চলিয়া গেল গোপনে মুছিয়া ফেলি নয়নের জল । বালিকা নয়ন তুলি নীরবে রহিল চাহি, কি দেখিছে সেই জানে অনিমিষ চখে । সন্ধ্য। হোয়ে এল ক্রমে তবুও রহিল চাহি, তবুও ত পড়িল না নয়নে নিমেষ । অনিমিষ নেত্র ক্রমে করিয়া প্লাবিত একবিন্দু দুইবিন্দু ঝরিল সলিল । বাহুতে লুকায়ে মুখ কাতর বালিকা মৰ্ম্মভেদী অশ্রজলে করিল রোদন । হা-হা কবি কি করিলে, ফিরে দেখ, ফিরে এস, দি ও না বালার হৃদে আমন আঘাত— নীরবে বালার আহা কি বঙ্গ বেজেছে বুকে, গিয়াছে কোমল মন ভাঙ্গিয়া চুরিয়া ! १€