পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অচলিত) প্রথম খণ্ড.pdf/৪৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কবি-কাহিনী ভ্ৰমিতে ধরার মাঝে কত ভালবাসা পাবে, তাতে ৰদি ভাল থাক তাই হোকৃ তবে— তবু একবার যদি মনে কর নলিনারে ষে দুখিনী, যে তোমারে এত ভালবাসে ! কি করিলে মন তব পারিতাম জুড়াইতে যদি জানিতাম কবি করিতাম তাহ ! আমি অতি অভাগিনী জানি না বলিয়া যেন বিরক্ত হোয়ো না কবি এই ভিক্ষা দাও ! না জানিয়া না শুনিয়া যদি দোষ করে থাকি, ক্ষুদ্র আমি, ক্ষমা তবে করিয়ো আমারে-- তুমি ভাল থেকে কবি, ক্ষুত্র এক কাটা ৰেন ফুটে না তোমার পায়ে ভ্ৰমিতে পৃথিবী । জননি, কোথায় তুমি রেখে গেলে দুহিতারে ? কত দিন একা একা কাটালাম হেথা, একেল তুলিয়া ফুল কত মাল৷ গাথিতাম, একেল কাননময় করিতাম খেলা ! তোমার বীণাটি ল’য়ে, উঠিয়া পৰ্ব্বতশিরে একেল। আপন মনে গাইতাম গান— হরিণশিশুটি মোর বসিত পায়ের তলে, পাখীটি কাধের পরে শুনিত নীরবে । এইরূপ কত দিন কাটালেম বনে বনে, কত দিন পরে তবে এলে তুমি কবি ! তখন তোমারে কবি কি যে ভালবাসিলাম এত ভাল কাহারেও বাসি নাই কতু । দূর স্বরগের এক জ্যোতিৰ্ম্ময় দেব-সম কত বার মনে মনে করেছি প্রণাম । দূর থেকে জাখি ভরি দেখিতাম মুখখানি, দূর থেকে শুনিতাম মধুময় গান। ৰে দিন আপনি আসি কহিলে আমার কাছে ভূত্র এই বালিকারে ভালবাস তুমি, ২৭