পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অচলিত) প্রথম খণ্ড.pdf/৮১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বন-ফুল এখনো অঙ্কুটস্বরে ‘কমলা ! কমলা ? ক’রে কুটার আপনি যেন করে সভাষণ ! কে জানে কাহাকে ডাকে, কে জানে কেন বা ডাকে, কেমনে বলিব কেবা ভাকিছে কোথায় ? সহসা পথিকবর দেখে দণ্ডে করি ভর ‘কমলা ! কমলা ? বলি শুক গান গায় ! আবার পথিকবর হন ধীরে অগ্রসর, ‘কুন্দরি ! সুন্দরি ? বলি ডাকিয়া আবার ! আবার পথিক হায় উত্তর নাহিক পায়, বসিল উরুর পরে সঁপি দেহভার ! সঙ্কোচ করিয়া কিছু পাশ্ববর আগুপিছু একটু একটু ক’রে হন অগ্রসর । আনমিত করি শিরে পথিকটি ধীরে ধীরে বালার নাসার কাছে সঁপিলেন কর । হস্ত কাপে থরথরে, বুক ধুক ধুক্‌ করে, পড়িল অবশ বাহু কপোলের পর— লোমাঞ্চিত কলেবরে বিন্দু বিন্দু ঘৰ্ম্ম করে, কে জানে পধিক কেন টানি লয় কর । আবার কেন কি জানি বালিকার হস্তখানি লইলেন আপনার করতল-’পরি – তবুও বালিকা হায় চেতন নাহিক পায়— অচেতনে শোক জালা রয়েছে পাশরি ! রুক্ষ রুক্ষ কেশরাশি বুকের উপরে আসি থেকে থেকে কঁাপি উঠে নিশ্বাসের ভরে ! বাহাত অঁাচল-’পরে অবশ রয়েছে পড়ে এলো কেশরাশি মাঝে সঁপি ভান করে । ছাড়ি বালিকার কর ত্রস্ত উঠে পাশ্ববর দ্রুতগতি চলিলেন তটিনীর ধারে, নদীর শীতল নীরে ভিজায়ে বসন ধীরে ফিরি জাইলেন পুনঃ ফুটারের দ্বারে । (t?