পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড) - সুলভ বিশ্বভারতী.pdf/৪৪৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8VO রবীন্দ্র-রচনাবলী নির্মলার রুদ্ধ অভিমান চন্দ্ৰবাবুর স্নেহম্বরে অকস্মাৎ অশ্রুজালে বিগলিত হইবার উপক্ৰম করিলনিঃশব্দে সংবরণ করিবার চেষ্টা করিতে লাগিল । তাহাকে নিরুত্তর দেখিয়া চন্দ্ৰমাধববাবু নির্মলার কাছে আসিলেন । নির্মলার মুখখানি দুই আঙুল দিয়া তুলিয়া ধরিয়া ক্ষণকাল দেখিলেন (মৃদুহাস্যে) নির্মল আকাশে একটুখানি মালিন্য দেখছি যেন। কী হয়েছে বলে দেখি । নির্মলা । (ক্ষুব্ধস্বরে) এতদিন পরে আমাকে তোমাদের চিরকুমার-সভা থেকে বিদায় দিচ্ছ কেন । আমি কী করেছি । চন্দ্ৰবাবু। (আশ্চর্য হইয়া) চিরকুমার-সভা থেকে তোমাকে বিদায় ? তোমার সঙ্গে সে সভার যোগ কী । নির্মলা । দরজার আড়ালে থাকলে বুঝি যোগ থাকে না ? অন্তত সেই যতটুকু যোগ তাই বা কেন यदि | চন্দ্ৰবাবু। নির্মল, তুমি তো এ সভার কাজ করবে না, যারা কাজ করবে তাদের সুবিধার প্রতি লক্ষ রেখেই নির্মলা । আমি কেন কাজ করব না । তোমার ভাগ্নে না হয়ে ভাগী হয়ে জন্মেছি বলেই কি তোমাদের হিতকার্যে যোগ দিতে পারব না । তবে আমাকে এতদিন শিক্ষা দিলে কেন । নিজের হাতে আমার সমস্ত মন প্ৰাণ জাগিয়ে দিয়ে শেষকালে কাজের পথ রোধ করে দাও কী বলে। চন্দ্ৰবাবু। নির্মল, এক সময়ে তো বিবাহ করে তোমাকে সংসারের কাজে প্রবৃত্ত হতে হবে, চন্দ্ৰবাবু। তবে কী করবে বলো । নির্মলা । দেশের কাজে তোমার সাহায্য করব । চন্দ্ৰবাবু। আমরা তো সন্ন্যাসব্রত গ্ৰহণ করতে প্ৰস্তুত হয়েছি। নির্মলা । ভারতবর্ষে কি কেউ কখনো সন্ন্যাসিনী হয় নি । চন্দ্ৰমাধববাবু নিরুত্তর হইয়া দাড়াইয়া রহিলেন মামা, যদি কোনো মেয়ে তোমাদের ব্ৰত-গ্রহণের জন্যে অন্তরের সঙ্গে প্ৰস্তুত হয় তবে প্ৰকাশ্যভাবে তোমাদের সভার মধ্যে কেন তাকে গ্রহণ করবে না । আমি তোমাদের কৌমাৰ্যসভার কেন সভ্য না হব । চন্দ্ৰবাবু। (দ্বিধাকুষ্ঠিতভাবে) অন্য যারা সভ্য আছেন— একজন ব্ৰতধারিণী স্ত্রীলোককে অসংকোচে নিজের দলে গ্রহণ করতে পারবেন না । তা যদি হয় তা হলে র্তারা গৃহী হয়ে ঘরে রুদ্ধ থাকুন, তাদের দ্বারা কোনো কাজ হবে না। চন্দ্ৰীমাধববাবু চুলগুলোর মধ্যে ঘন ঘন পাঁচ আঙুল চালাইয়া অত্যন্ত উল্ক খুষ্ক করিয়া তুলিলেন এমন সময় হঠাৎ তাহার আস্তিনের ভিতর হইতে হারানো বোতামটা মাটিতে পড়িয়া গোল নির্মলা হাসিতে হাসিতে কুড়াইয়া লইয়া চন্দ্ৰমাধববাবুর কামিজের গলায় লাগাইয়া দিল- চন্দ্ৰীমাধববাবু তাহার কোনো খবর লইলেন না-চুলের মধ্যে করিতে লাগিলেন । নির্মলার প্রস্থান পূৰ্ণবাবুর প্রবেশ পূর্ণ। চন্দ্ৰবাবু, সে কথাটা কি ভেবে দেখলেন। আমাদের সভাটিকে স্থানান্তর করা আমার বিবেচনায় डigनों व्Cप्रय नीं । চন্দ্ৰবাবু। আজ আর-একটি কথা উঠেছে, সেটা পূৰ্ণবাবু তোমার সঙ্গে ভালো করে আলোচনা করতে ইচ্ছা করি । আমার একটি ভায়ী আছেন বোধ হয় জান ?