পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ঊনবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১০৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বীথিকা সমস্ত পৃথিবী তুমি অবজ্ঞায় করেছ অশুচি, গরবিনী, তাই সেই শক্তি গেছে ঘুচি আপনার অন্তরে রহিতে অমলিনা— হায়, তুমি নিখিলের আশীর্বাদহীনা। ৪ অগস্ট ১৯৩২ প্রলয় আকাশের দূরত্ব যে, চোখে তারে দূর বলে জানি, মনে তারে দূর নাহি মানি । কালের দূরত্ব সেও যত কেন হোক-না নিষ্ঠুর তবু সে দুঃসহ নহে দূর । আঁধারের দূরত্বই কাছে থেকে রচে ব্যবধান, চেতনা আবিল করে, তার হাতে নাই পরিত্রাণ শুধু এই মাত্র নয়— সে-যে স্বষ্টি করে নিত্য ভয় । ছায়া দিয়ে রচি তুলে আঁকাবঁকা দীর্ঘ উপছায়া, জানারে অজানা করে— ঘেরে তারে অর্থহীনা মায়া । পথ লুপ্ত করে দিয়ে যে পথের করে সে নির্দেশ নাই তার শেষ । সে পথ ভুলায়ে লয় দিনে দিনে দূর হতে দূরে ধ্রুবতারাহীন অন্ধপুরে । অগ্নিবন্যা বিস্তারিয়া ষে প্রলয় আনে মহাকাল, চন্দ্রস্বর্ধ লুপ্ত করে আবর্তে-ঘূর্ণিত জটাজাল, দিব্য দীপ্তিচ্ছটায় সে সাজে, বজের ঝঞ্চনামন্দ্রে বক্ষে তার রুদ্রবীণা বাজে । যে বিশ্বে বেদন হানে তাহারি দাহনে করে তার পবিত্র সৎকার । জীর্ণ জগতের ভস্ম যুগান্তের প্রচও নিশ্বাসে লুপ্ত হয় ঝঙ্কার বাতাসে। ఏ(t