পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ঊনবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/২৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বীথিকা আবার রচিলে নব কুহকের পালা, সাজালে ডালিতে নূতন বরণমালা, নয়নে আনিলে নূতন চেনার হাসি । কোন সাগরের অধীর জোয়ার লেগে আবার নদীর নাড়ী নেচে ওঠে বেগে, আবার চলিচু ভাসি । তুমি ভেসে চল সাথে । চিররপখানি নবরূপে আসে প্রাণে ; নানা পরশের মাধুরীর মাঝখানে তোমারি সে হাত মিলেছে আমার হাতে । গোপন গভীর রহস্তে অবিরত ঋতুতে ঋতুতে স্বরের ফসল কত ফলায়ে তুলেছ বিস্মিত মোর গীতে । শুকতারা তব কয়েছিল যে কথারে চিনি, নাহি চিনি তবু । প্রতি দিবসের সংসারমাঝে তুমি স্পর্শ করিয়া আছ যে-মর্তভূমি তার আবরণ খসে পড়ে যদি কভু, তখন তোমার মুরতি দীপ্তিমতী প্রকাশ করিবে আপন অমরাবতী সকল কালের বিরহের মহাকাশে । তাহারি বেদনা কত কীর্তির স্তপে উচ্ছিত হয়ে ওঠে অসংখ্য রূপে পুরুষের ইতিহাসে । হে কৈশোরের প্রিয়া, এ জনমে তুমি নব জীবনের দ্বারে X (t